যৌন নিপীড়ন: জাবি শিক্ষক মাহমুদুর চাকরিচ্যুত

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনকারীরা হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, সিন্ডিকেট থেকে যদি শিক্ষক মাহমুদুর রহমান জনির বিরুদ্ধে কোনো শাস্তির ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে তারা কঠোর আন্দোলনে যাবেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 20 Feb 2024, 07:05 PM
Updated : 20 Feb 2024, 07:05 PM

যৌন নিপীড়নের অভিযোগে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুর রহমান জনিকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।  

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক নূরুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ সিন্ডিকেট সভায় পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিকস বিভাগের এই শিক্ষকের ব্যাপারে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

সভা শেষে রাত ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক আবু হাসান সাংবাদিকদের বলেন, “তদন্ত কমিটির সুপারিশে সিন্ডিকেট সভায় সর্বসম্মতিক্রমে নৈতিক অসচ্চরিত্রতার দায়ে মাহমুদুর রহমান জনিকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।”

২০২২ সালের ২১ নভেম্বর মাহামুদুর রহমান জনির বিরুদ্ধে এক নারী প্রভাষকের অন্তরঙ্গ ছবি ফাঁস হয়। সেই সঙ্গে বিভাগের শিক্ষক পদে আবেদনকারী এক নারী শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথোপকথনের ২৭টি অডিও প্রকাশিত হয়। যেখানে মাহমুদুর রহমান জনির বিরুদ্ধে জোরপূর্বক গর্ভপাত করানোর তথ্য উঠে আসে।

এরপর শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ‘সত্যাসত্য যাচাই’ কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। 

কমিটির প্রতিবেদন সিন্ডিকেটে তোলা হলে প্রতিবেদন পূর্ণাঙ্গ হয়নি বলে ‘স্পষ্টীকরণ’ কমিটি করা হয়। 

এই কমিটির প্রতিবেদনে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেলে ২০২৩ সালের অগাস্ট মাসে ‘স্ট্র্যাকচার্ড’ কমিটি করা হয়।

কমিটি হওয়ার পর ছয় মাস পার হলেও এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত জানাচ্ছিল না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।  

এর মধ্যে ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে আবাসিক হলে স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে কৌশলে হলের পাশে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ৪৫তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ও শাখা ছাত্রলীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান, তার পরিচিত মামুনুর রশীদ মামুনসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে এবং দায়ীদের বিচারে পাঁচ দফা দাবিতে ক্যাম্পাসে ধারাবাহিক আন্দোলন চালিয়ে আসছে ‘নিপীড়নবিরোধী মঞ্চ’। তারা নিপীড়ক শিক্ষক মাহমুদুর রহমান জনির বিচার নিষ্পত্তি করাসহ ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সময়ে নানাবিধ অপরাধে অভিযুক্তদের বিচারের আওতায় আনার দাবিও করেছিলেন।

সোমবার রাতে মশাল মিছিল শেষে আন্দোলনকারীরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিলেন, যদি মঙ্গলবারের সিন্ডিকেট সভা থেকে শিক্ষক মাহমুদুর রহমান জনির বিরুদ্ধে কোনো শাস্তির ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে তারা কঠোর আন্দোলনে যাবেন।

এসবের মধ্যেই মঙ্গলবার জরুরি সিন্ডিকেট সভা থেকে শিক্ষক মাহমুদুর রহমানকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

আরও পড়ুন:

Also Read: জাবিতে নিপীড়নবিরোধী মঞ্চের মশাল মিছিল

জাবিতে ধর্ষণ: তৃতীয় দিনের মতো প্রশাসনিক ভবন অবরোধ

জাবিতে ধর্ষণ: আচার্যকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান

জাবিতে ধর্ষণ: মশাল মিছিল শেষে উপাচার্য ও শিক্ষার্থীদের বিতণ্ডা

জাবিতে ধর্ষণের বিরুদ্ধে সংহতি সমাবেশে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরাও

জাবিতে ধর্ষণ: রিমান্ড শেষে কারাগারে ৪ আসামি

জাহাঙ্গীরনগরে ধর্ষণ: ঘটনার যে বিবরণ দিল র‌্যাব

জাহাঙ্গীরনগরে ‘ধর্ষণ’: বাকি দুই আসামিও গ্রেপ্তার

জাবিতে ধর্ষণ: দিনভর বিক্ষোভে নামল আরও অনেকেই

জাবি প্রশাসনের ব্যর্থতায় যৌন নিপীড়ন বন্ধ হয়নি: ইউজিসি

জাবিতে ধর্ষণ: তৃতীয় দিনেও উত্তাল ক্যাম্পাস

আগের ঘটনায় ব্যবস্থা না নেওয়ায় জাবিতে ফের ধর্ষণ: ১৮ নাগরিক

জাবিতে ধর্ষণের প্রতিবাদের নতুন প্ল্যাটফর্ম ‘নিপীড়নবিরোধী মঞ্চ’

‘ধর্ষকের জন্ম বিচারহীনতায়’: জাহাঙ্গীরনগরে ক্ষোভ

ধর্ষকদের শাস্তির দাবিতে জাহাঙ্গীরনগরে মশাল মিছিল

জাবিতে ধর্ষণ: জড়িতদের সনদ স্থগিত, ক্যাম্পাসে 'অবাঞ্ছিত'

ধর্ষণ: জাহাঙ্গীরনগরের চার শিক্ষার্থী ৩ দিনের রিমান্ডে

ধর্ষণ: বিক্ষোভে উত্তাল জাহাঙ্গীরনগর

জাবিতে ধর্ষণ: ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজ ও মামুনকে সহায়তা করেন চারজন

জাবিতে স্বামীকে আটকে নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

জাবিতে ধর্ষক-নিপীড়কের কুশপুতুল দাহ