উকিল সাত্তারকে পাস করিয়ে আনা হবে: রুমিন ফারহানা

আশুগঞ্জে এক সেমিনারে বিএনপি দলীয় সাবেক এই সংসদ সদস্য এ কথা বলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Jan 2023, 04:11 PM
Updated : 15 Jan 2023, 04:11 PM

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপির কোনো নেতাকর্মী দলছূট উকিল আব্দুস সাত্তার ভূঞার পক্ষে কাজ করবে না এবং ভোট দিতে কেন্দ্রে যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির নেত্রী রুমিন ফারহানা। 

রোববার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে একটি রেস্টুরেন্টে উপজেলা বিএনপি আয়োজিত এক সেমিনারে সাবেক এই সংসদ সদস্য এ কথা বলেন। 

বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক এ সম্পাদক বলেন, “ওনাকে (আব্দুস সাত্তার ভূঞা) পাশ করিয়ে আনা হবে। এখানে তো ভোট হচ্ছে না, আপনারাও বুঝতে পারছেন। আওয়ামী লীগের যারা প্রার্থী ছিলেন তারা বসে পড়ছেন। তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন না। 

“তার মানেটা কী? তারা জানেন যে একটা কলাগাছ দাঁড়ালেই ওনার সঙ্গে পাশ করবে। ওনার কোনো ভোট নাই। বিএনপির ভোট ওনার নাই, আওয়ামী লীগের ভোটও ওনার নাই। যে দাঁড়াবে সেই পাশ করবে৷” 

তিনি আরও বলেন, “এই ঝুঁকিটাও আওয়ামী লীগ নিতে চাচ্ছে না। তাই আওয়ামী লীগের যারা প্রার্থী ছিলেন তারা বসে পড়ছেন, সম্ভবত তাকে ডিক্লেয়ার দিয়ে পাশ করিয়ে আনা হবে। শেষ জীবনে উনার কর্মফল উনি ভোগ করবেন।”  

দলীয় সিদ্ধান্তে গত ১১ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উকিল আবদুস সাত্তারসহ বিএনপির ৭ সংসদ সদস্য পদত্যাগপত্র জমা দেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে। ছেড়ে দেওয়া এসব আসনে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

তার আগে দলীয় চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদসহ বিএনপির সব ধরনের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা জানান তিনি। পরে তাকে দলীয় সব পদ ও প্রাথমিক সদস্য থেকে বহিষ্কার করে দল। 

উকিল আব্দুস সাত্তার কুমিল্লা জেলা বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সহসভাপতি ছিলেন। তিনি ২৮ বছর জেলা সভাপতির দায়িত্ব সামলেছেন।

নিজের ছেড়ে দেওয়া আসনে উপ-নির্বাচনে উকিল আব্দুস সাত্তার ভূঞা প্রার্থী হওয়ায় এলাকায় নানা গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে শনিবার আওয়ামী লীগের তিন নেতা উপ-নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোয় সেই গুঞ্জন আরও ডালাপালা মেলে। 

বিএনপি নেত্রী রুমিন ফারহানা বলেন, “তিনি (আব্দুস সাত্তার ভূঞা) এমন একটি কাজ করবেন আপনারা যেমন কল্পনা করেননি, দলও কল্পনা করেনি। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, তিনি বলেছেন, তুমি এলাকায় চলে যাও। আমি সেই সময় ভাগ্যগুণে এলাকাতেই ছিলাম। তিনি আমাকে এলাকাতে আরও বেশি সময় দিতে বললেন।” 

“উনার মধ্যে আমি যেটা দেখলাম, বিএনপি এত বড় একটা দল, এত মানুষের সমর্থন, এত মানুষের ভালবাসা, এখানে একজন বা দুইজন মীরজাফর কী করলো না করলো তাতে কিচ্ছু যায়-আসে না।” 

তিনি বলেন, “ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান একটা কথা পরিষ্কার বলেছেন, ঘরে ঘরে আমাদের বার্তা পৌঁছে দিতে হবে৷ ভোটের দিন আমরা কেউ ভোটকেন্দ্রে যাব না। অনেকের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকতে পারে, পারিবারিক সম্পর্ক থাকতে পারে, ব্যক্তিগত সম্পর্ক থাকতে পারে কিন্তু সেই সম্পর্কের রেশ ধরে যেন কেউ উকিল আব্দুস সাত্তারের পক্ষে কাজ না করি।” 

“কেউ যেন একটা ভোট না চাই। দল অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে আছে। যারা কাজ করবেন তাদের নাম যেন আমি জমা দেই। যদি কোনো পদে থাকেন সেই পদ থেকে তাদের বহিষ্কার করা হবে।” 

সাবেক এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, “আমি বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সদস্য। তাই আমাকে নিয়মিত তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হয়৷ আন্তর্জাতিকভাবে খুব শক্ত চাপ আছে সরকারের ওপর, আর কোনো নির্বাচনে এভাবে রাতে ভোট করা যাবে না। আগামী নির্বাচন হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ।” 

আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শাজাহান সিরাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জহির, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল হোসেন জয়, উপজেলা যুবদলের সদস্যসচিব নাসির মুন্সী। 

আরও পড়ুন:

ভোট থেকে সরলেন ৩ আওয়ামী লীগ নেতা, উকিল সাত্তারকে নিয়ে ‘গুঞ্জন’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভোটে আছেন আওয়ামী লীগের মঈন, সাবেক এমপি জিয়াউল

সরকার উকিল আব্দুস সাত্তারকে চাপ দিয়ে নির্বাচনে এনেছে: রুমিন ফারহানা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া উপ-নির্বাচনে ৮ প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ, ৫ জনের বাতিল

মনোনয়নপত্র জমা দিলেন উকিল আব্দুস সাত্তার

পদত্যাগী উকিল আব্দুস সাত্তারকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা বিএনপির

বিএনপি ছেড়ে ভোটে লড়তে মনোনয়নপত্র নিলেন উকিল আব্দুস সাত্তার

বিএনপি ছাড়লেন উকিল আবদুস সাত্তার

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক