ইভ্যালির রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

রাসেল বলেন, “সময়মত হাজির হতে না পরায় ওয়ারেন্ট হয়েছে। এটা জামিনযোগ্য। আদালতে গেলেই জামিন পেয়ে যাব।”

আদালত প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Jan 2024, 08:14 AM
Updated : 15 Jan 2024, 08:14 AM

চেক প্রতারণার অভিযোগে এক গ্রাহকের করা মামলায় ই-কমার্স কোম্পানি ইভ্যালির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী কোম্পানির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।

রাসেল ও শামীমা আদালতের সমনে হাজির না হওয়ায় ঢাকার মহানগর হাকিম মো. আলী হায়দার সোমবার এ আদেশ দেন।

তাদের গ্রেপ্তার করা গেল কি না, সে বিষয়ে ২৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য মোহাম্মদপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা রাসেল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সময়মত হাজির হতে না পরায় ওয়ারেন্ট হয়েছে। এটা জামিনযোগ্য। আদালতে গেলেই জামিন পেয়ে যাব।”

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে যাত্রা শুরুর পর গাড়ি, মোটরসাইকেল, আসবাবপত্র, স্মার্ট টিভি, ফ্রিজ, এসি, ওয়াশিং মেশিনের মত পণ্য অর্ধেক দামে বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে সাড়া ফেলে অনলাইন মার্কেট প্লেস ইভ্যালি।

তাদের চটকদার অফারের ‘প্রলোভনে’ অনেকেই বিপুল অংকের টাকা অগ্রিম দিয়ে পণ্যের অর্ডার করেছিলেন পরে বেশি দামে বিক্রি করে ভালো লাভ করার আশায়। কিন্তু মাসের পর মাস অপেক্ষা করেও তাদের অনেকে পণ্য বুঝে পাননি; ইভ্যালি অগ্রিম হিসেবে নেওয়া টাকাও ফেরত দেয়নি।

এক পর্যায়ে ক্রেতা ও পণ্য সরবরাহকারীদের কাছে ৫৪৩ কোটি টাকার দায়ে পড়ে ইভ্যালি। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনার মধ্যে ২০২১ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে ইভ্যালিসহ আরও বেশ কিছু ই কমার্স কোম্পানির বিরুদ্ধে প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে বিক্ষোভে নামে গ্রাহকরা।

সে সময়  রাসেল ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে কয়েক ডজন মামলা হয়; এ মামলা তারই একটি।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ইভ্যালির গ্রাহক মো. তানভীর হোসেন ২০২১ সালের ১৩ মার্চ বিজ্ঞাপন দেখে মোটরসাইকেল কেনার জন্য কোম্পানিকে ২ লাখ ৪৫ হাজার টাকা দেন। কিন্তু কোম্পানি নির্ধারিত ৪৫ দিনের মধ্যে মোটরসাইকেল সরবরাহ করেনি।

ইভ্যালি পরে ওই বছর ১৩ সেপ্টেম্বর তানভীরকে ২ লাখ ৪৫ হাজার টাকার চেক দিলেও তাদের অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় ব্যাংক তা ফিরিয়ে দেয়। সেই গ্রাহক উকিল নোটিস পাঠিয়েও টাকা ফেরত না পেয়ে গত বছরের ২২ ডিসেম্বর রাসেল ও শামীমার বিরুদ্ধে মামলা করে দেন।

এরকমই এক গ্রাহকের করা মামলায় ২০২১ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। রিমান্ডে নিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদও করা হয় সে সময়।

আট মাস কারাবাসের পর সবগুলো মামলায় জামিন পেয়ে ২০২২ সালের ৬ এপ্রিল কারামুক্ত হন ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা। তার স্বামী রাসেল জামিনে ছাড়া পন গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর।

গ্রাহকদের করা এসব মামলার কার্যক্রম স্থগিতের জন্য হাই কোর্টে একটি আবেদন করা হয়েছিল। কিন্ত হাই কোর্টের একক কোম্পানি বেঞ্চের বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরীর গত বছরের ২০ জুন তা খারিজ করে দেন।

পুরনো খবর:

Also Read: ইভ্যালির সিইও রাসেল কারামুক্ত

Also Read: দেনায় জর্জরিত ইভ্যালি নিয়ে কারামুক্ত রাসেলের ভাবনা কী?

Also Read: ইভ্যালি: চমক জাগানো উত্থান, পতন গ্রাহক ডুবিয়ে

Also Read: ইভ্যালির জমা-খরচের ‘কূল-কিনারা পায়নি’ আদালত গঠিত পর্ষদ

Also Read: জামিনে বেরিয়ে ‘নতুন শুরুর’ কথা বললেন ইভ্যালির শামীমা

Also Read: ইভ্যালির শেয়ার কিনে পর্ষদে থাকতে চান রাসেলের শ্বশুর-শাশুড়ি

Also Read: ইভ্যালির সিন্দুক ভেঙে মিলল আড়াই হাজার টাকা

Also Read: ইভ্যালির প্রধান কার্যালয়ে চুরি: ভবন মালিক কারাগারে

Also Read: ইভ্যালির ব্যবস্থাপনায় পর্ষদ করে দিল আদালত

Also Read: গ্রাহকের দেনার হিসাব দেয়নি ইভ্যালি