কিশোরগঞ্জে কোচিং সেন্টার থেকে চিকিৎসককে ‘অপহরণের’ অভিযোগ

“তারা ডা. কাউসারকে একটি কালো মাইক্রোবাসে উঠিয়ে দ্রুত চলে যায়,” বলছেন এক সহকর্মী।

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Nov 2022, 04:36 AM
Updated : 13 Nov 2022, 04:36 AM

কিশোরগঞ্জ শহরের একটি কোচিং সেন্টার থেকে এক তরুণ চিকিৎসককে ‘অপহরণের’ অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

২৮ বছর বয়সী মির্জা নূর কাউসার কিশোরগঞ্জের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফার্মাকোলজি বিভাগের প্রভাষক। তার গ্রামের বাড়ি বাজিতপুর উপজেলার উজানচর গ্রামে।

শহরের খরমপট্টি এলাকায় সমবায় মার্কেটের দোতালায় মেডিক্স কোচিং সেন্টার পরিচালনায় যুক্ত ছিলেন কাউসার। শনিবার সন্ধ্যায় সেখান থেকে একদল লোক তাকে ডেকে নিয়ে যায় বলে পরিবার ও সহকর্মীদের ভাষ্য।  

মেডিক্স কোচিং সেন্টারের ব্যবস্থাপক মাহবুব আলম জানান, সন্ধ্যা ৬টা ৫২ মিনিটে ‘অজ্ঞাতপরিচয়’ কয়েকজন লোক এসে ডা. মির্জা নূর কাউসারকে তাদের সাথে যেতে বলে। কয়েক মিনিট পর তাকে নিয়ে তারা নিচে নামে।

“তারা ডা. কাউসারকে একটি কালো মাইক্রোবাসে উঠিয়ে দ্রুত চলে যায়। তারপর থেকে কাউসারের আর কোনো খবর পাওয়া যায়নি।”

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ বলেন, “নিখোঁজ চিকিৎসককে উদ্ধার করতে পুলিশ বিভাগ তৎপরতা চালাচ্ছে। কোচিং সেন্টার থেকে সিসিটিভি ফুটেজ নিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। দ্রুতই তাকে উদ্ধার করা যাবে বলে আশা করছি।”

ডা. কাউসারের স্ত্রী রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক। তাদের একটি মেয়ে আছে। শহরের খরমপট্টি এলাকার একটি ভাড়া বাসায় তাদের সঙ্গেই থাকেন কাউসারের বাবা আব্দুল হাকিম।

তিনি বলেন, “কেন আমার ছেলেকে অপহরণ করতে পারে বুঝতে পারছি না। সে কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে ছিল না। আমার জানামতে তার কোনো শত্রুও নেই।”

কাউসারের শ্যালক আমিনুর রহমান খান জানান, আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক আব্দুস শহীদ সুমনও ঘটনার সময় কোচিং সেন্টারে ছিলেন। তিনিই কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।   

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক