চুইংগাম চাবালেই মুখ কমে না

চুইংগাম চিবালে মুখের ফোলাভাব কমবে- ধারণাটা ভ্রান্ত।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 4 Sept 2022, 08:22 AM
Updated : 4 Sept 2022, 08:22 AM

বছরখানেক দৈনিক আট ঘণ্টা চুইংগাম চিবালে হয়ত চাপা-ভাঙাভাব দেখা দিতে পারে।

চোয়ালের আকৃতি পরিবর্তন, চাপা ভাঙাভাব আনার শত চেষ্টার মাঝে জনপ্রিয় একটা পন্থা হল চুইংগাম চিবানো। তবে চোয়ালের আকৃতি পরিবর্তনের জন্য যে সময় ধরে চিবাতে হবে তাতে হয়ত জীবন শেষ হয়ে যাবে।

এই বিষয়ে কানেকটিকাটের ‘ইয়েল স্কুল অফ মেডিসিন’য়ের ‘ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেইশল সার্জারি’র প্রধান ডা. ডেরেক স্টেইনবাকার বলেন, “ব্যায়াম করলে যেমন পেশি গঠিত হয়, চুইংগাম চাবালেও চোয়ালের পেশি সুগঠিত হতে পারে। আর কানের কাছাকাছি চোয়ালের এই পেশির নাম ‘ম্যাসিস্টার’।”

ইন্সাইডার ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তিনি আরও বলেন, “তবে ম্যাসিস্টার পেশি সুগঠন করতে চাইলে প্রায় বছরখানেক ধরে দৈনিক ছয় থেকে আট ঘণ্টা চুইংগাম চিবাতে হবে। আর অতিরিক্ত চাবানোর ফলে দেখা দিতে পারে অন্যান্য সমস্যা।”

এই বিষয়ে টেক্সাসের ‘বেলোর কলেজ অফ মেডিসিন’য়ের নাক-কান-গলা’র অধ্যাপক ডা. সন্তোশ সিভাম একেই প্রতিবেদনে বলেন, “চোয়ালের পেশির সঙ্গে অনেক কিছুই যুক্ত আছে। যেমন- চাপার হাড়, গাল ও গলার চর্বির আস্তর, গলার অতিরিক্ত চামড়া, লালাগ্রন্থির অবস্থান।”

যে কারণে শুধু চুইংগাম চিবিয়ে মুখের আদল পরিবর্তন করাটা একটা অসম্ভব ব্যাপার। বরং অতিরিক্ত চাবালে অন্যান্য স্বাস্থ্য ঝুঁকি দেখা দিতে পারে।

অতিরিক্ত চুইংগাম চাবালে যা হয়

চুইংগামে থাকা উপাদান মুখের নানান প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

ডা. স্টেইনবাকার বলেন, “চুইংগামে থাকা চিনি দাঁতের জন্য মোটেই ভালো নয়। মুখে থাকা ব্যাক্টেরিয়া চিনির সঙ্গে বিক্রিয়া ঘটিয়ে অ্যাসিডে পরিণত করে। যা থেকে হয় দাঁতের ক্ষয় বা ‘ক্যাভিটিজ’।”

এই সমস্যা এড়াতে ‘সুগার ফ্রি’ চুইংগাম চাবানো যেতে পারে। তবে সেখানেও রয়েছে অন্য ঝামেলা।

ডা. স্টেইনবাকারের কথায়, “কৃত্রিম চিনিতেও অসুবিধা হয়। এর ‘অ্যাসপার্টাম’ উপাদান অনেকের সহ্য হয় না।”

চাবানোর ক্ষেত্রে যেহেতু চোয়াল জড়িত, সেজন্য দেখা দিতে পারে ‘টেম্পোরোম্যান্ডিবুলার জয়েন্ট ডিজঅর্ডার’ বা টিএমজে।

এই রোগের লক্ষণের মধ্যে রয়েছে- চোয়াল, মুখ ও কানে ব্যথা, চাবানোর সময় ব্যথা করা, চোয়াল আটকে যাওয়া বা কটকট শব্দ করা।

দাঁত ও চোয়ালের সমস্যা ছাড়াও দেখা দিতে পারে হজমতন্ত্রের গণ্ডগোল। কারণ অতিরিক্ত চাবানোর ফলে বেশি মাত্রায় বাতাস মুখ দিয়ে পেটে ঢুকতে থাকে। ফলে গ্যাস হওয়া, অতিরিক্ত ঢেকুর তোলা, পেটফোলাভাব ও ঘন ঘন বায়ুনির্গত হওয়ার সমস্যা দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে।

চোয়ালে আকৃতি পরিবর্তন করার উপায়

অপারেশন বা কস্মেটিক সার্জারি করে রাতারাতি চোয়ালের আকৃতি পরিবর্তন বা ফোলাভাব কমানো যায় বটে, তবে সেগুলোর পেছনে খরচের ব্যাপার রয়েছে।

এই বিষয়ে ডা. সিভাম পরামর্শ দেন, “সার্জিকাল’ ও ‘নন-সার্জিকাল’ পন্থায় মুখের আকার পরিবর্তন করা যায়। তবে আপনি যদি অতিরিক্ত ওজনধারী হন, সেজন্য সাধারণ ব্যায়াম আর খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করে দেহের সার্বিক ওজন কমাতে পারলে মুখের আদল এমনিতেই পরিবর্তিত হবে। আর এরজন্য বিশেষজ্ঞ পুষ্টিবিদ এবং পেশাদার ব্যায়াম বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।”

আরও পড়ুন

Also Read: মানসিক চাপ দূর করতে মুখ মালিশ

Also Read: মুখের চর্বি কমাতে ৫ অভ্যাস

Also Read: চর্বি কমানোর সহায়ক খাবার

Also Read: বেশি ক্যালরি পোড়াতে চুইংগাম

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক