হিসাব প্রতিবেদন সঠিক হলে সাহস তৈরি হবে: আহসান মনসুর

একাউন্টিং সঠিকভাবে না করলে ফাইনান্সিয়াল সেক্টরের অবস্থা আরও খারাপ হবে, বলেন তিনি।

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Sept 2022, 07:08 PM
Updated : 29 Sept 2022, 07:08 PM

ঋণ বিতরণ, আদায়সহ অর্থনীতির সব খাতেই সঠিক হিসাব সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করে অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেছেন, ব্যাংকগুলো দুর্বল ভিত্তির ওপর পরিচালিত হচ্ছে। 

বৃহস্পতিবার ‘ডকুমেন্ট ভেরিফিকেশন সিস্টেম (ডিভিএস)’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, “ব্যাংকগুলো হচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্লায়েন্ট (সেবা গ্রহীতা)। তাই ক্লায়েন্ট ও রেগুলেটরের (নিয়ন্ত্রক) মধ্যে ‘মিউচুয়াল রেসপেক্ট (পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ) থাকতে হবে। কয়েকদিন পূর্বে কিছু ব্যাংকের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। কেউ কোনো কথা বললো না। কারণ সৎ সাহস নেই। হিসাব শক্ত হলে এই সাহস তৈরি হবে। আবার ব্যাংকগুলোর রেগুলেটরের কোনো সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করার আইনগত সুযোগ নেই।” 

ডলারের লেনদেনে অস্বাভাবিক মুনাফা করায় গত অগাস্টে ৬ ব্যাংকের ট্রেজারি প্রধানকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ঘটনায় দেড় ডজনের মতো ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে ব্যাখ্যাও চেয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যদিও গত ২২ সেপ্টেম্বর ট্রেজারি প্রধানদের শর্ত সাপেক্ষে দায়িত্বে ফেরতের সুযোগ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। 

সঠিক হিসাব সংরক্ষণের মাধ্যমেই আইনগতভাবে শক্তিশালী হওয়া সম্ভব মন্তব্য করে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান মনসুর বলেন, “আমাদের দেশে গ্রাহকরা আর্থিক দিক দিয়ে দুর্বল। গ্রাহকদেরও কিন্তু শক্তিশালী হওয়ার সুযোগ রয়েছে। সে যদি নিজেদের অবস্থান শক্ত করতে পারে, তাহলে আদালতে গিয়েও দাঁড়াতে পারে।” 

তিনি বলেন, “আমরা যদি একাউন্টিং সঠিকভাবে না করি, তবে ফাইনান্সিয়াল সেক্টরের অবস্থা আরও খারাপ হবে। এখন যে খুব ভালো আছে, সেটাও নয়।’’ 

জাল নিরীক্ষা প্রতিবেদন ঠেকাতে বছর দুয়েক আগে ডিভিএস সফটওয়্যার চালু করে সনদপ্রাপ্ত হিসাববিদদের সংস্থা দ্য ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি)। সংস্থাটির নিবন্ধিত হিসাববিদ তাদের প্রস্তুত করা নিরীক্ষিত হিসাব প্রতিবেদনসহ যাবতীয় তথ্য ডিভিএসে আপলোড করে থাকেন। সেখান থেকে যেকোনো নিরীক্ষিত প্রতিবেদনের সত্যতা যাচাই করতে পারে আইসিএবির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান। 

এই সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনায় অংশ নিয়ে ব্ক্তারা বলেন, ভুল তথ্য দিয়ে আর্থিক প্রতিবেদন তৈরি করার ফলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থাহীনতা তৈরি হয়েছে। পুঁজিবাজারে নিবন্ধিত হওয়ার সময় দেওয়া তথ্য সঠিক হলে এর সুবিধা পান বিনিয়োগকারীরা। 

রাজধানীর মিরপুরে বিআইবিএম কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে সংস্থার মহাপরিচালক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, “ডিভিএস পদ্ধতি ব্যবহারের ফলে আর্থিক প্রতিবেদনে কারসাজি করার প্রবণতা একবারেই কমে যাবে।” 

সেমিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) ও আইসিএবি। 

বিআইবিএম’র অধ্যাপক ড. প্রশান্ত কুমার ব্যানার্জ্জীর সঞ্চালনায় আলোচনায় অন্যদের মধ্যে অংশ নেন প্রতিষ্ঠানটির সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ সোহেল মোস্তফা, চেয়ার প্রফেসর ড. মোজাফফর আহমদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. বরকত-এ-খোদা, আইসিএবি’র প্রেসিডেন্ট মো. শাহাদাৎ হোসেন, অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোরশেদুল কবির, সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক