‘সব ব্রাজিলিয়ানের এক হওয়ার সময় হয়েছে’

ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রাফিনিয়ার মতে, তারা সবসময়ই বিশ্বকাপের দাবিদার।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Nov 2022, 11:32 AM
Updated : 15 Nov 2022, 11:32 AM

সবশেষ ব্রাজিল যখন বিশ্বকাপ জিতেছিল, রাফিনিয়ার বয়স তখন ৬। দুই দশক আগের সেই সব স্মৃতি অনেকটাই ঝাপসা। তবে দেশের মানুষের একত্রিত হওয়ার, উল্লাসে ফেটে পড়ার ছবিটা পরিষ্কার। তেমনই দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি দেখতে চান ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ড। বললেন, দেশের মানুষের আরও একবার এক হওয়ার সময় হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানে আয়োজিত ২০০২ বিশ্বকাপে রেকর্ড পঞ্চম ও নিজেদের সবশেষ শিরোপা ঘরে তুলেছিল ব্রাজিল। ফাইনালে জার্মানিকে ২-০ গোলে হারায় রোনালদো-রিভালদোরা। ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজতেই উল্লাসে ফেটে পড়ে সারা বিশ্বে তাদের সমর্থকরা। ব্রাজিল জুড়ে বয়ে যায় আনন্দের জোয়ার।

সেই উৎসবের পর পেরিয়ে গেছে ২০ বছর। মাঝে হয়ে গেছে আরও চারটি বিশ্বকাপ। কিন্তু জার্সিতে স্বপ্নের ছয় তারকা আর যোগ করতে পারেনি তারা। লম্বা একটা সময় ধরে শিরোপা জেতা হচ্ছে না ব্রাজিলের। সবশেষ চার আসরে তাদের সর্বোচ্চ অর্জন ঘরের মাঠে ২০১৪ সালে সেমি-ফাইনাল খেলা। অবশ্য সেখানে আরও বড় হতাশা লুকিয়ে; জার্মানদের বিপক্ষে যে ৭-১ গোলে বিধ্বস্ত হতে হয়েছিল।

ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জিততে মরিয়া ব্রাজিলের মানুষ আরও একবার নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। কাতারে দলটির সেই অভিযানের অংশ বার্সেলোনার ফরোয়ার্ড রাফিনিয়াও। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলার হাতছানি ২৫ বছর বয়সী ফুটবলারের সামনে।

বার্সেলোনা ওয়েবসাইটে সোমবার প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে রাফিনিয়া বলেন, ব্রাজিলের মানুষকে আবারও এক করতে আশাবাদী তিনি।

“স্বাভাবিকভাবেই সমর্থকরা ব্রাজিলের ষষ্ঠ শিরোপা জয়ের জন্য অধীর অপেক্ষায় আছে, আমরাও তাই। ২০০২ বিশ্বকাপের খুব বেশি কিছু আমার মনে নেই, কারণ আমি তখন খুব ছোট ছিলাম। তবে সেটা ছিল অবিশ্বাস্য ও অবর্ণনীয় অনুভূতি। ব্রাজিলের সব মানুষ এক হয়েছিল, পরস্পরকে জড়িয়ে ধরেছিল। এখন আবারও আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করার ভালো সময় হয়েছে।”

২০২১ সালের অক্টোবরে ব্রাজিলের হয়ে অভিষেক রাফিনিয়ার। এখন পর্যন্ত দেশের হয়ে ১১ ম্যাচ খেলে পাঁচ গোল করেছেন তিনি। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব লিডস ইউনাইটেড ঘুরে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়া এই ফরোয়ার্ড প্রস্তুত বিশ্বকাপের চ্যালেঞ্জের জন্য।

“আমি বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত। শারীরিক ও মানসিকভাবে যতটা সম্ভব ভালো অবস্থায় সেখানে যাওয়ার জন্য আমি কঠোর পরিশ্রম করছি। দলের মধ্যে আবহ দারুণ।”

“আমি বিষয়টা চাপ হিসেবে দেখছি না। ব্রাজিল সবসময়ই বিশ্বকাপ কিংবা অন্য যে প্রতিযোগিতায়ই খেলুক না কেন, শিরোপার দাবিদার। সমর্থকদের চাহিদা থাকাই স্বাভাবিক, কারণ আমরা বড় বড় তারকাদের নিয়ে গড়া উঁচু মানের এক দল।”

আগামী ২৪ নভেম্বর সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু করবে ব্রাজিল। ‘জি’ গ্রুপে তাদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ সুইজারল্যান্ড ও ক্যামেরুন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক