অনুশীলনে মেসি ঝলক

শুটিং প্র্যাকটিসে নেমে তিন শটের মধ্যে দুটি থেকে গোল করলেন মহাতারকা।

মোহাম্মদ জুবায়েরমোহাম্মদ জুবায়েরদোহা থেকেবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Nov 2022, 04:59 PM
Updated : 21 Nov 2022, 04:59 PM

ডান পায়ের প্রথম শটে বল হাওয়ায় ভেসে বাঁক খেয়ে চোখের পলকে খুঁজে নিল ঠিকানা। জাদুকরী বাঁ পায়ের পরের শটও যথারীতি লুটোপুটি খেল জালে। এরপর তৃতীয় শটটি একটু জোরেই নিলেন লিওনেল মেসি। বলও ছুটল পোস্টের দিকে, কিন্তু ফিরল ক্রসবার কাঁপিয়ে। অল্পের জন্য একশতে একশ হলো না!

তাতে কী? এই তিন শটেই যেন আর্জেন্টিনার পথ দেখানোর বার্তা নতুন করে দিয়ে রাখলেন ফুটবলের এই মহাতারকা। কেননা, অনুশীলনের মতো মাঠের লড়াইয়ে তিন শটের দুটি থেকে গোল পেলেই মিলে যেতে পারে আর্জেন্টিনার অনেক সমীকরণ। সেই ১৯৮৬ সালের পর থেকে আরেকটি বিশ্বকাপের জন্য তাদের অপেক্ষার ক্ষণ গোনা চলছে যে ৩৬ বছর ধরে।

আড়াল ভেঙে সোমবার প্রথমবারের মতো কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন নম্বর মাঠে গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে অনুশীলন করলেন মেসি। কদিন ধরে যে অধীর অপেক্ষায় দিন গুনছিলেন সংবাদ সংগ্রহ করতে আসা সারা বিশ্বের সংবাদকর্মীরা, তাদের প্রতিক্ষার অবসান ঘটালেন। কিন্তু সময় যে মাত্র ১৫ মিনিট। এতটুকুতে কী আর মেসিকে দেখার তৃষ্ণা মিটে? এ তৃষ্ণা যে অনিঃশেষ।

তিনি অনুশীলনে নামবেন, বাঁ পায়ের ড্রিবলিংয়ের জাদু দেখাবেন, আলো ছড়াবেন, নয়ত আক্রমণের সুর বেঁধে দেবেন ডিফেন্সচেরা পাসে। টেলিভিশনের পর্দায় হরহামেশাই দেখা মেলে যে ছবিগুলোর, সেগুলোর চাক্ষুস সাক্ষী হওয়ার সুযোগ মিলবে, এমন কত আশা নিয়ে আর্জেন্টিনার অনুশীলন মাঠে জুটেছিলেন সংবাদকর্মীরা! দেখা হওয়ার তৃপ্তি থাকলেও মনভরে দেখতে না পারায় হতাশ হয়ে ফিরতে হয় তাদের।

কদিন ধরে মেসিকে নিয়ে কেন এত রহস্য, কেন এত রাখঢাক, তা কেবল লিওনেল স্কালোনিই বলতে পারেন। কাতারে নোঙর ফেলার পর থেকে দলের আক্রমণভাগের প্রাণভোমরাকে গণমাধ্যমের আড়াল করে রেখেছেন তিনি। প্রতিদিনই অনুশীলনে সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ীর পায়ের জাদু দেখতে তিন নম্বর মাঠে ভিড় জমান সংবাদকর্মীরা, কিন্তু মেসির দেখা মেলা ভার।

গণমাধ্যমের কিছু কর্মীর সামনে দ্বিতীয় দিনের অনুশীলন তিনি কিছুটা সময় করেছিলেন একাকী। সোমবার প্রথম করলেন সতীর্থদের সঙ্গে শুরু থেকে।

মূল অনুশীলনে মেসি কি করেছেন, তা জানার উপায় নেই। তবে সংবাদকর্মীদের জন্য বরাদ্দকৃত ১৫ মিনিটের অনুশীলনে কিছুক্ষণ বল নিয়ে জাগলিং করলেন, হালকা দৌড়ালেন, যাকে বলে গা গরম করা। বরাবর শান্ত টাইপের এই ফরোয়ার্ড অনুশীলনেও থাকলেন একই রকম। সতীর্থ কারো সঙ্গে হাসাহাসি, খুনসুটিতে মাতলেন না, বরং ঋষির মগ্নতায় নিজের কাজগুলো করতে থাকলেন নিখুঁতভাবে।

শেষ দিকে ওই শুটিং প্র্যাকটিস। গোল তার নিত্যসখা। চাইলেই যেন পায়ের কাছে লুটিয়ে পড়ে। কিন্তু তারপরও মেসি সিরিয়াস। নিজেকে আরও নিবিড়ভাবে শাণিয়ে নিতে শুরুতে শট নিতে এলেন। আলতো করে বলটি সবুজে বসিয়ে ডান পায়ে নিলেন প্রথম শট, পাখির মতো ডানা মেলে বল খুঁজে নিল নীড়। দ্বিতীয় শটও চোখের পলকে পৌঁছাল গন্তব্যে। কিন্তু তৃতীয় শটটি ক্রসবারে বাড়ি খেয়ে আহত পাখির মতো ডানা ঝাপটে লুটিয়ে পড়ল মাঠে।

তবে এতটুকুর ঝলকেই যেন অনেক কিছু দেখিয়ে দিলেন মেসি। আর্জেন্টিনার জার্সিতে এখন পর্যন্ত ১৬৫ ম্যাচে ৯১ গোল তার। দলের সর্বোচ্চ গোলদাতাও তিনি। সবশেষ পাঁচ ম্যাচে গোল করেছেন ১১টি। সবশেষ ম্যাচগুলোর রেশ, কিংবা অনুশীলনের তিন শটের দুটি থেকে লক্ষ্যভেদের সুরটুকু মেসি মাঠে টেনে নিতে পারলেই তো পথচলা সহজ হয়ে যায় আর্জেন্টিনার।

লুসাইল স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার সৌদি আরবের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্কাপ শুরু করবে আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপে এই প্রথম মুখোমুখি হবে দুই দল। অনুশীলনের ওই ছন্দ মেসি মাঠে কতটুকু টেনে নিতে পারবেন, সে পরীক্ষাও শুরু হবে এ ম্যাচ দিয়ে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক