শেরপুরে শিশুকে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলায় যুবকের ৪৪ বছরের সাজা

মামলার অপর দুই আসামিকে ১৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে বলে জানান পিপি।

শেরপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 Nov 2023, 05:52 PM
Updated : 1 Nov 2023, 05:52 PM

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে ১২ বছরের এক শিশুকে অপহরণের পর ধর্ষণের দায়ে এক যুবককে ৪৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এ ছাড়া মামলার অপর দুই আসামিকে ১৪ বছর করে সাজা দেওয়া হয়েছে।

বুধবার শেরপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন নাহার রুমী আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) গোলাম কিবরিয়া বুলু।

৪৪ বছর সাজা পাওয়া বাবু মিয়া (২৯) নালিতাবাড়ী উপজেলার বনপাড়া গ্রামের বাসিন্দা এবং অপহরণে সহায়তার দায়ে ১৪ বছর করে বাবুর বাবা মোফাজ্জল হক (৫৪) ও তার আত্মীয় লুৎফা বেগমকে (৩৪) সাজা দেওয়া হয়েছে।

মামলার বরাতে পিপি গোলাম কিবরিয়া বলেন, “মোফাজ্জল তার দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছেলের বাবুর সঙ্গে পাশের গ্রামের এক শিশুর বিয়ের প্রস্তাব দেন। তবে ওই শিশুর মা-বাবা তা প্রত্যাখ্যান করেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে শিশুটিকে অপহরণের পরিকল্পনা করেন মোফাজ্জল হক, লুৎফা ও বাবু।

“পরে ২০১৯ সালের ৫ মে বাড়িতে বাবা-মা না থাকার সুযোগে শিশুকে পানির সঙ্গে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অজ্ঞান করে ঢাকায় নিয়ে আটকে রাখেন তারা। সেখানে শিশুকে ধর্ষণ করেন বাবু।”

তিনি আরও বলেন, বাড়ি ফিরে মেয়েকে না পেয়ে তার বাবা নালিতাবাড়ী থানায় মামলা করেন। পরে পুলিশ একই বছরের ২৯ মে শিশুটিকে উদ্ধার করে।

তদন্ত শেষে নালিতাবাড়ী থানার তৎকালীন এসআই জহুরুল হক তিনজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের এ আইনজীবী।

সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে প্রধান আসামি বাবুকে ধর্ষণের দায়ে ৩০ বছর ও অপহরণের দায়ে ১৪ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে; যা একসঙ্গে চলবে বলে জানান পিপি কিবরিয়া।

এ ছাড়া বাবুর বাবা মোফাজ্জল ও লুৎফাকে ১৪ বছরের সাজার পাশাপাশি পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়; যা অনাদায়ে তাদের আরও এক মাস কারাবাসে থাকতে হবে বলে জানান পিপি।