নাটোরে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ-ধর্ষণের দায়ে ৬০ বছরের কারাদণ্ড

২০১৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে ওই ছাত্রী বাইরে বের হলে তাকে মুখ চেপে অপহরণ করেন হাফিজুল।

নাটোর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 Feb 2024, 08:35 AM
Updated : 25 Feb 2024, 08:35 AM

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলায় সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীকে বাড়ি থেকে অপহরণের পর ধর্ষণের দায়ে এক যুবককে ৬০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

রোববার বেলা ১১টার দিকে আসামির উপস্থিতিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম এ রায় দেন বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মো. আনিসুর রহমান।

দণ্ডপ্রাপ্ত মো. হাফিজুল ইসলাম (৪০) উপজেলার বাঙ্গালখলসী এলাকার বাসিন্দা।

মামলার বরাতে আইনজীবী জানান, হাফিজুল এক সময় ভারতে থাকতেন। দেশে ফিরে ছাত্রীকে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করা শুরু করেন। ২০১৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে ওই ছাত্রী বাইরে বের হলে তাকে মুখ চেপে অপহরণ করেন হাফিজুল। পরদিন তিনজনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন ছাত্রীর বাবা।

হাফিজুল ছাত্রীকে অপহরণ করে ঢাকায় নিয়ে ধর্ষণ করেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। পরে তাকে ভারতে পাচারের জন্য যশোর নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকেই তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ এবং ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়।   

মামলাটির প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা মো. উজ্জ্বল হোসেন আদালতে হাফিজুলসহ তিনজনের নামে অভিযোগপত্র দেন। পরবর্তীতে তদন্ত কর্মকর্তা নাজমুল হক শুধু হাফিজুলের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেন।   

আইনজীবী আনিসুর রহমান বলেন, আদালত হাফিজুলকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। একই আইনের ৭ ধারায় তার বিরুদ্ধে আবারও একই সাজা ও জরিমানার আদেশ দেন বিচারক।

“দুটি যাবজ্জীবনের আদেশ অনুযায়ী হাফিজুলকে ৬০ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে এবং জরিমানার ৪০ হাজার টাকা ছাত্রীকে দিতে হবে”, বলেন সরকারি কৌঁসুলি।