মাওলানা সা'দের তিন ছেলে ইজতেমা ময়দানে

প্রথম পর্বের মত একই নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও আয়োজন এ পর্বেও বলবৎ থাকবে বলে জানিয়েছেন জিএমপি কমিশনার।

গাজীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 8 Feb 2024, 10:20 AM
Updated : 8 Feb 2024, 10:20 AM

গাজীপুরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে। এবারের ইজতেমায় ভারতের দিল্লি মারকাজের মাওলানা সা’দ কান্ধলভী না আসলেও এসেছেন তার তিন ছেলে।

বুধবার মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ, মেজো ছেলে মাওলানা সাঈদ ও ছোট ছেলে মাওলানা ইলিয়াসসহ ভারতের নিজামউদ্দিন মারকাজের ১৪ জনের একটি জামাত ঢাকায় পৌঁছান।

বিমানবন্দরে তাদেরকে স্বাগত জানান কাকরাইলের সূরা সদস্য সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, মুফতি ওসামা ইসলামসহ বাংলাদেশের মুরুব্বিরা। পরে বুধবার সন্ধ্যায় থেকে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে পৌঁছান তারা।

নিজামুদ্দিন মারকাজ থেকে আরও একটি জামাত বৃহস্পতিবার ইজতেমা ময়দানে আসার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন সাদপন্থী (নিজামুদ্দিনের অনুসারী) তাবলীগ জামাতের মিডিয়া সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সায়েম।

এদিকে একদিন আগেই ময়দানে আসতে শুরু করেছেন তাবলিগ জামাতের সা’দের অনুসারীরা। টঙ্গীর তুরাগ তীরের ময়দানে অবস্থান নেওয়া মানুষদের ‘জমিয়ে রাখতে’ বৃহস্পতিবার বাদ ফজরই বয়ান শুরু করেছেন মুরুব্বিরা।

মোহাম্মদ সায়েম জানান, টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমার এবারের দ্বিতীয় পর্বে ১২ থেকে ১৪ হাজার বিদেশি মেহমান যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সায়েম বলেন, এর মধ্যে প্রায় তিন হাজারের উপরে বিদেশি মেহমান এবং দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখো মানুষ টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে এসে পৌঁছেছেন। বুধবার থেকেই ময়দানে নির্ধারিত খিত্তায় অবস্থান নিতে শুরু করেন তারা।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় ইজতেমার কার্যক্রম নিয়ে প্রথম মাশোয়ারা হয়। মাশোয়ারার জিম্মাদার ছিলেন আব্দুস সাত্তার সাহেব দা. বা. (ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজ)।

মাশোয়ারার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ময়দানে আসা মানুষদের উদ্দেশে বাদ ফজর থেকেই প্রাথমিক বয়ান শুরু করেন তাবলিগের মুরুব্বিরা।

বাদ ফজর বয়ান করেন ভারতের মাওলানা শরিফ সাহেব। তা বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল্লাহ মনসুর (কাকরাইল মসজিদ)।

আয়োজকরা জানান, শুক্রবার থেকে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের (সাদ অনুসারী) আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলেও আম বয়ান চলবে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকেই।

রোববার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতে কয়েক লাখ মানুষ অংশ নেবেন বলে ধারণা আয়োজকদের।

প্রথম পর্বের মত একই নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও আয়োজন/প্রস্তুতি এ পর্বেও বলবৎ থাকবে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর মহানগর পুলিশের কমিশনার মো. মাহবুব আলম ও গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম।