শিশুকন্যাকে ‘টয়লেট ক্লিনার’ খাইয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা গৃহবধূর, শিশুর মৃত্যু

গৃহবধূর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানায় চিকিৎসক।

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Feb 2024, 12:09 PM
Updated : 11 Feb 2024, 12:09 PM

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় পারিবারিক কলহের জেরে শিশুকন্যাকে ‘টয়লেট ক্লিনার’ খাইয়ে হত্যার পর আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন মা।

টুঙ্গিপাড়া থানার ওসি আমিনুর রহমান জানান, গত শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

৯ মাস বয়সি নিহত আফিয়া বেগম ওই গ্রামের গাছকাটা শ্রমিক মামুন তালুকদার ও আঁখি বেগম দম্পতির কন্যা।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় আঁখি বেগমকে (১৮) গোপালগঞ্জে শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশের ধারণা, আর্থিক অনটন ও পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

রাফুজা বেগম নামে এক প্রতিবেশী জানান, বছর দুয়েক আগে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতী গ্রামের নূর আলম শেখের মেয়ে আঁখি বেগমের সঙ্গে একই উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামের মামুন তালুকদারের বিয়ে হয়।

তিনি আরও জানান, মামুন মাঝে-মধ্যে গাছ কাটা শ্রমিকের কাজ করলেও অধিকাংশ সময় বেকার থাকতেন। ফলে সংসারে অভাব-অনটন লেগেই থাকত। বেকার বসে না থেকে কাজ করার কথা বললে, স্ত্রীর সঙ্গে মামুনের ঝগড়া হত।

এসব কারণে শনিবার সন্ধ্যার দিকে আঁখি বেগম প্রথম মেয়েকে টয়লেট ক্লিনার পান করিয়ে পরে নিজেও পান করেন।

বিষয়টি প্রতিবেশীরা বুঝতে পেরে মা-মেয়েকে উদ্ধার করে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জসিম উদ্দিন বলেন, হাসাপাতালে আনার আগেই শিশুটি মারা যায়। মায়ের অবস্থাও শঙ্কামুক্ত নয়। তাই তাকে গোপালগঞ্জ পাঠানো হয়েছে।

স্বজনদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শিশুটির মরদেহ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান ওসি আমিনুর রহমান।

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ থানায় অভিযোগ করেননি। তবে ঘটনাটির তদন্ত চলছে। অভিযোগ দিলে অথবা তদন্তে কেউ দোষী সাব্যস্ত হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।