বিপৎসীমার উপরে তিস্তার পানি, বন্যার আশঙ্কা

ভাঙন রোধে নদীতে জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ চলমান রয়েছে বলে জানিয়েছে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড-পাউবো।

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 March 2024, 02:46 AM
Updated : 2 March 2024, 02:46 AM

টানা বৃষ্টি ও উজানের ঢলে কুড়িগ্রামে তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন চরাঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ। নিম্নাঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যার আশঙ্কা।

এ ছাড়া তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার ও ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে; আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন নদী পাড়ের বাসিন্দাদের।

এ দিকে ভাঙন রোধে নদীতে জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ চলমান রয়েছে বলে জানিয়েছে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড-পাউবো।

পাউবোর তথ্য অনুযায়ী, জেলার অন্য নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার অনেক নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে সোমবার দুপুর ১২টায় তিস্তার কাউনিয়া পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ১০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হতে দেখা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিস্তার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে। ঘরবাড়ি তলিয়ে না গেলেও আমন ক্ষেত নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে কৃষক। এরই মধ্যে ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের চর খিতাব খাঁ, বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের চর বিদ্যানন্দ, চর পাড়ামৌলা ও চর তৈয়ব খাঁর নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশের পাশাপাশি দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য হিরা বলেন, “রোববার থেকে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করে। এতে তিস্তার বাম তীরে ঘড়িয়াল ডাঙ্গা এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে অনেক মানুষ ভিটেমাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন। ভাঙন অব্যাহত থাকলে অনেকে বাড়িঘর জমিজমা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাবেন।”

কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি কর্মকর্তা মো. খোরশেদ আলম বলেন, এরকম বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে মরিচ ও চালকুমড়াসহ বিভিন্ন শাক-সবজির ক্ষতি হতে পারে। এ ছাড়া ক্ষতি হতে পারে রোপা আমনেরও।

গত ২৪ ঘণ্টায় কুড়িগ্রামে ৫০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে; তবে মঙ্গলবারের মধ্যে বৃষ্টিপাত কমার সম্ভাবনা রয়েছে বলে কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলা কৃষি আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান।

কুড়িগ্রাম পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে সমতল স্তরে পানি আরো বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভবনা আছে; তবে বড় ধরনের বন্যার শঙ্কা নেই।

রাজারহাটের ঘড়িয়াল ডাঙ্গা নদী ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ শুরু করছে বলে তিনি জানান। 

[প্রতিবেদনটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক]