নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের দুই নেতার সমর্থকদের সংঘর্ষ, আহত ৬

একজন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন, অন্যজনও নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন।

নোয়াখালী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 28 Nov 2023, 08:44 PM
Updated : 28 Nov 2023, 08:44 PM

নোয়াখালীর সেনবাগে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান এমপি মোরশেদ আলম এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি আতাউর রহমান মানিকের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশ, সাংবাদিকসহ অন্তত ৬ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে সেনবাগ বাজারে এ সংঘর্ষের মধ্যে বোমাবাজিও হয়েছে বলে সেনবাগ থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিন জানিয়েছেন।

আহতদের মধ্যে পুলিশের এএসআই মো. কাউসারকে সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আরটিভি ও দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম পাটোয়ারীও সংঘর্ষের মধ্যে আহত হয়েছেন।

আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-২ (সেনবাগ-সোনাইমুড়ি) আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমকেই মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি আতাউর রহমান মানিকও নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে সেনবাগ সরকারি কলেজে মানিকের এক অনুসারীর সঙ্গে মোরশেদের এক কর্মীর হাতাহাতি হয়। এর জেরে সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ গেইট এলাকায় মানিকের এক অনুসারীকে মারধর করে এমপি মোরশেদের অনুসারীরা।

পরে রাত ৯টার দিকে উভয় পক্ষ দলবল নিয়ে বাজারে জড়ো হলে তাদের মধ্যে ধাওয়া- পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল ও কাচের বোতল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

এ সময় বাজারের দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। দুই পক্ষকে থামাতে গিয়ে সেনবাগ থানার এএসআই মো. কাউছার ইটের আঘাতে আহত হন।

সংঘর্ষের ছবি তুলতে গিয়ে হামলার শিকার হন আরটিভি ও দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম পাটোয়ারী। তারা দুজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন।

সেনবাগ থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিন বলেন, “দুই পক্ষের সমর্থকরা মিছিল করতে বাজারে জড়ো হয়। এ সময় তাদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং কয়েকটি পটকার বিস্ফোরণ ঘটে।”

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি আতাউর রহমান ভূঁইয়া বলেন, “আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ঘোষণা দেওয়ার পর গোটা নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে উৎসব দেখা দেয়। এতে হতাশ হয়ে মোরশেদ আলম তার অনুসারীদের দিয়ে এলাকায় বোমাবাজি করে আতংক সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। তারা আমার একজন কর্মীকে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে।”

অন্যদিকে সেনবাগ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোরশেদ আলম বলেন, তিনি তার অনুসারীদের বলে দিয়েছেন শান্ত থাকার জন্য। তারা কোনো ধরনের মারামারি কিংবা ঝামেলায় ‘জড়িত নয়’।