দল বদলে দোষের কিছু দেখেন না ওবায়দুল কাদের

ওবায়দুল কাদের বলেন, “গণমুখী রাজনীতি না করে ষড়যন্ত্রের চোরাগলিতে পা রাখায় বিএনপির আজকে এই দুরাবস্থা। তাদের দলের বিভক্তি আমরা করতে যাইনি। কোনো দলকে ভাগ করা, এটা আমাদের নীতি নয়।”

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 2 Dec 2023, 08:22 AM
Updated : 2 Dec 2023, 08:22 AM

দল বদল করা যে কারো ব্যক্তিগত স্বাধীনতা বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে তিনি বলেন, “বিএনপির নেতৃত্বে কি এতই দেউলিয়া যে, ব্ল্যাকমেইল করলেই চলে আসবে? এতদিন রাজনীতি করল, রাজনৈতিক পরীক্ষায় তারা এতই ব্যর্থ যে, তারা কারো ব্ল্যাকমেলিংয়ে প্রলুব্ধ অন্য দলে যাবে?।”

সম্প্রতি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ওমরের আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার প্রসঙ্গে কাদের বলেন, “এটা তার ব্যক্তিগত স্বাধীনতা, এটাও গণতন্ত্র। আমার এ দল ভালো লাগেনা, আমি আর এক দলে যাব, সেটাতে তো আমরা হস্তক্ষেপ করিনি। তিনি (শাহজাহান ওমর) স্বেচ্ছায় এসেছেন, এটা তিনি নিজেই তার বক্তব্যে বলেছেন।”

সেতুমন্ত্রী বলেন “বিএনপির নেতৃত্বে কিছু কিছু দল নির্বাচনবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকলেও বাংলাদেশের জনগণ এখন পুরোপুরি নির্বাচনমুখী হয়ে পড়েছে, এই কথা নির্দ্বিধায় বলা চলে। তারা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেয়েছিল, ঠেকাতে চেয়েছিল এবং এখনো সে অপচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু বাংলাদেশের জনগণ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।

“আন্দোলনের নামে আগুন সন্ত্রাস, অবরোধ, হরতাল এসব কর্মসূচি দিয়েও বাংলাদেশের মানুষকে নির্বাচন থেকে বিমুখ করা সম্ভব হয়নি।”

বিএনপির রাজনীতি নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “গণমুখী রাজনীতি না করে ষড়যন্ত্রের চোরাগলিতে পা রাখায় বিএনপির আজকে এই দুরাবস্থা। তাদের দলের বিভক্তি আমরা করতে যাইনি। কোনো দলকে ভাগ করা, এটা আমাদের নীতি নয়। সর্বনাশা ভুল নীতিই তাদের দলে বিভেদ সৃষ্টি করেছে।

“বিএনপি ভাঙেনি- এ কথা যারা উঁচু গলায় বলেন তারা সত্য বলছেন না। কারণ আজকে তৃণমূল বিএনপি এত প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে, এরা সকলেই বিএনপির লোক; বেশিরভাগই বিএনপি থেকে আসা। বিভক্তির বিষয়টা না আসলেও আজকে বিএনপির নেতৃত্বের উপর হতাশ হয়ে বিএনপির সাবেক নেতা, বর্তমান নেতাদেরও অনেকে নির্বাচন করছেন।”

নিবন্ধিত বেশিরভাগ দলই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি, বাংলাদেশে যারা ভোটার টার্নআউট নিয়ে সন্দেহ পোষণ করেন, ইতিমধ্যে আমরা যে দৃশ্যপট নির্বাচনে দেখতে পাচ্ছি, তাতে কিন্তু রেকর্ড সংখ্যক ভোটার উপস্থিতি আমরা দেখতে পাব।”

নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন মন্তব্য করে কাদের বলেন, “নির্বাচনী ব্যবস্থাটা এখন সম্পূর্ণভাবে তাদের হাতে। যখন যে ব্যবস্থা প্রয়োজন সেটা এখন তারা নিতে পারে। সেই ব্যবস্থা আমাদের বিরুদ্ধে গেলেও আমরা স্বাগত জানাই। তাদের যৌক্তিক যেকোনো সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই।”