ইমাজিনেশনের চীনে চলে যাওয়া ঠেকাতে মরিয়া যুক্তরাজ্য

মাইক্রোচিপ নির্মাণে শীর্ষ দুইটি ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানের একটি এখন ‘চীনা মালিকানায়’। প্রতিষ্ঠানটির নাম ইমাজিনেশন টেকনোলজিস। এখন শঙ্কা তৈরি হয়েছে হার্টফোর্ডশায়ার ভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠানটি সোজা চীনে চলে যাওয়ার।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 April 2020, 01:37 PM
Updated : 17 April 2020, 01:37 PM

এমন বাস্তবতায় প্রতিষ্ঠানটির প্রযুক্তিতে "চীনের আধিপত্য ঠেকাতে আরও অনেক কিছু করা উচিৎ" বলে মন্তব্য করেছেন ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমএই৬-এর সাবেক প্রধান স্যার জন সায়ার্স। দেশটির জনপ্রতিনিধিরাও বলছেন এমন ঘটনা ঠেকাতে যা যা সম্ভব সবই করা উচিৎ -- খবর বার্তাসংস্থা রয়টার্সের।

২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত এমআই৬ প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন স্যার জন। স্কাই নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “আমি মনি করি না স্নায়ু যুদ্ধের সময় সোভিয়েত ইউনিয়ন যতোটা হুমকির কারণ ছিলো চীন সেই পর্যায়ে চলে এসেছে।”

“কিন্তু প্রযুক্তি নিয়ন্ত্রণের প্রশ্নে গভীর প্রতিদ্বন্দ্বীতা আসছে। চীনের ওপর নির্ভরশীলতা ঠেকাতে পশ্চিমের আরও কিছু করার আছে।”

যুক্তরাজ্যের প্রযুক্তি সাম্রাজ্যে এআরএম হোল্ডিংস-এর বড় প্রতিদ্বন্দ্বী ইমাজিনেশন টেকনোলিজসকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়েই দেখা হয় । ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠানটি অধিগ্রহণ করে ক্যানিয়ন ব্রিজ। চীনের রাষ্টীয় মালিকানাধীন চায়না রিফর্ম হোল্ডিংস-এর একটি প্রাইভেট ইকুইটি ফার্ম এটি।

রয়টার্স তাদের প্রতিবেদনে ইমাজিনেশন টেকনোলজিসকে বর্ণনা করেছে ব্রিটিশ প্রযুক্তি মুকুটের এক গুরুত্বপূর্ণ রত্ন হিসেবে। প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমটি আরও জানাচ্ছে, প্রতিষ্ঠানটির নতুন মালিক প্রতিষ্ঠান চায়না রিফর্মস হোল্ডিংস চাইছে তাদের সমর্থনপুষ্ট ব্যক্তিদের প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদে বসাতে। আর সেটি করা সম্ভব হলে প্রতিষ্ঠানটির যুক্তরাজ্য থেকে পাততাড়ি গুটিয়ে চীনে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া একেবারেই সহজ হয়ে যায়।

গত ১৪ এপ্রিল প্রতিষ্ঠানটির একটি বোর্ড মিটিং হওয়ার কথা ছিল। বি্রটিশ সরকারের দাবি, তাদের 'হস্তক্ষেপের কারণে' সেই সভা শেষ পর্যন্ত আয়োজিত হয়নি। এরই মধ্যে শুক্রবার পদত্যাগ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির সিইও ড. রন ব্ল্যাক।

ইমাজিনেশন টেকনোলজিসের প্রযুক্তিগত ভিত্তি যুক্তরাজ্য থেকে সরিয়ে চীনে নিয়ে যাওয়া ঠেকাতে ব্রিটিশ সরকারের সব কৌশল খতিয়ে দেখা উচিত এবং প্রতিষ্ঠানটির জন্য পশ্চিমা ক্রেতা খোঁজা উচিত বলে মত দিয়েছেন দেশটির জনপ্রতিনিধিরাও।

"আমরা মনে করি যে ঘটনাটি ঘটতে চলেছে তা হলো, চীনারা চাইছে প্রযুক্তির ভিত্তি এখানে থেকে সরিয়ে চীনে নিয়ে যেতে", রয়টার্সকে বলেন জনপ্রতিনিধি ডেভিড ডেভিস। "সেটি একেবারেই অনুচিত কাজ হবে"- বলেন তিনি।

সাবেক গোয়োন্দা প্রধান জন সয়ার্সও বলছেন, “পশ্চিমা প্রযুক্তির সুরক্ষায় আমাদের আরও কিছু করতে হবে, যাতে চীনা প্রতিষ্ঠানগুলো এগুলো কিনতে না পারে।”

“আমি মনে করি ইমাজিনেশন যাতে যুক্তরাজ্যের বাইরে না যায় এবং চীনের কাছে বিক্রি না হয় তা নিশ্চিত করাটাই সঠিক কাজ হবে,” যোগ করেন তিনি।

২০১৭ সালে সাড়ে পাঁচশ মিলিয়ন পাউন্ডে ইমাজিনেশন টেকনোলজিস কেনার কিছুদিন আগেই অপর মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান লেটিস সেমিকন্ডাক্টর কর্পোরেশনকে ১৩০০ কোটি ডলারে কেনার চুক্তি প্রায় চূড়ান্ত করে এনেছিল ওই একই চীনা প্রতিষ্ঠান ক্যানিয়ন ব্রিজ। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার যুক্তিতে আটকে দেন সেই প্রক্রিয়া।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক