রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ডেনমার্ককে রুখে দিল তিউনিসিয়া

কাতার বিশ্বকাপে এই প্রথম কোনো ম্যাচে গোল হলো না।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Nov 2022, 02:00 PM
Updated : 22 Nov 2022, 02:00 PM

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে লড়াই হলো জমজমাট। দুই দলই পেল দারুণ কিছু সুযোগ। দেয়াল হয়ে দাঁড়ালেন দুই দলের গোলরক্ষক। বাধ সাধল পোস্টও। ডেনমার্ককে রুখে দিয়ে মূল্যবান একটি পয়েন্ট তুলে নিল তিউনিসিয়া। 

আল রাইয়ানের এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার বিশ্বকাপের ‘ডি’ গ্রুপের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে। 

কাতার আসরে এই প্রথম কোনো ম্যাচে গোল হলো না। প্রথম ছয় মধ্যে ড্র হলো এই নিয়ে দুটি।

ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের সবশেষ আসরে উজ্জীবিত ফুটবলে চমক দেখিয়ে সেমি-ফাইনালে উঠেছিল ডেনমার্ক। সেই সুখস্মৃতির অনুপ্রেরণায় বিশ্বকাপে আরও বড় কিছুর স্বপ্ন দেখার কথা আসরের শুরুতে বলেছিলেন দেশটির তারকা মিডফিল্ডার ক্রিস্তিয়ান এরিকসেন। শুরুটা যদিও আশানুরূপ হলো না তাদের। 

বিশ্বকাপে নিজেদের আগের ১৫ ম্যাচের ১৪টিতেই জাল অক্ষত রাখতে ব্যর্থ হওয়া তিউনিসিয়া গোল হজম করেছিল ২৫টি। ১৯৭৮ আসরে তখনকার পশ্চিম জার্মানির বিপক্ষে গোলশূন্য ড্রয়ের পর এই নিয়ে দ্বিতীয়বার ‘ক্লিন শিট’ রাখল আফ্রিকার দেশটি। 

বিশ্ব মঞ্চে দুই দলের মুখোমুখি প্রথম লড়াইয়ে বল দখলে শুরুতে প্রায় সমতা থাকলেও আক্রমণে এগিয়ে ছিল ডেনমার্ক। একাদশ মিনিটে অবশ্য বিপদে পড়তে বসেছিল তারা। তিউনিসিয়ার মিডফিল্ডার মোহামেদ দ্রাগারের শট ডেনিশ ডিফেন্ডার আন্দ্রেয়াস ক্রিস্তেনসেনের গায়ে লেগে পোস্টে সামান্য বাইরে দিয়ে যায়।

২৪তম মিনিটে নিজেদের অর্ধ থেকে সতীর্থের লম্বা করে বাড়ানো বল ধরে বক্সে ঢুকে বল ডেনমার্কের জালে পাঠান ইসাম জেবালি। তবে অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান।

৩৪তম মিনিটে দূর থেকে পিয়া-এমিল হয়বিয়ার শট ঠেকান তিউনিসিয়ার গোলরক্ষক আয়মান দাহমান। 

৪৩তম মিনিটে কাসপের স্মাইকেলের দৃঢ়তায় বেঁচে যায় ডেনমার্ক। সতীর্থের পাস বক্সে পাওয়া জেবালির সামনে একমাত্র বাধা ছিল গোলরক্ষক। তার চিপ শট এগিয়ে এসে এক হাতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন স্মাইকেল। 

দ্বিতীয়ার্ধের ষষ্ঠ মিনিটে আরেকটি দারুণ সুযোগ এসে যায় তিউনিসিয়ার সামনে। মাঝমাঠ থেকে বল ধরে এগিয়ে যান এইস্সা লাইদুনি। বক্সের সামনে গিয়ে তিনি অন্য পাশে সতীর্থকে পাস দিতে চেয়েছিলেন। বিদপমুক্ত করেন ডেনমার্কের এক ডিফেন্ডার।

৫৬তম মিনিটে বক্সের ভেতর থেকে মিকেল ডামসগার্ডের শট তিউনিসিয়ার গোলরক্ষক ফেরানোর পর জালে বল পাঠান আন্দ্রেয়াস স্কোউ ওলসেন। তবে আক্রমণের শুরুতে অফসাইডে ছিলেন ডামসগার্ড। 

৬৯তম মিনিটে তিউনিসিয়ার ত্রাতা দাহমান। ডি-বক্সের সামনে থেকে ক্রিস্তিয়ান এরিকসেনের জোরাল শট এক হাতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন তিনি। সেই কর্নারে খানিক আগে বদলি নামা আন্দ্রেয়াস কর্নিলিউসের হেড লাগে পোস্টে। 

যোগ করা সময়ে ডি-বক্সে তিউনিসিয়ার ডিফেন্ডার ইয়াসিন মারিয়াহর হাতে বল লাগলে পেনাল্টির আবেদন করেন ডেনমার্কের খেলোয়াড়রা। তবে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে মনিটরে দেখে পেনাল্টি দেননি রেফারি।   

এই গ্রুপের আরেক ম্যাচে মঙ্গলবার রাতে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক