‘ব্রাজিলের ২০ বছরের অপেক্ষার শেষ হবে এবার’

দেশকে আবারও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন করতে নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার কথা দিলেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রদ্রিগো।

স্পোর্টস ডেস্ক
Published : 23 Nov 2022, 07:43 PM
Updated : 23 Nov 2022, 07:43 PM

ব্রাজিলের সবশেষ বিশ্বকাপ জয়ের সময় রদ্রিগোর বয়স কেবল ১ বছর। তাই ফুটবল যখন থেকে একটু একটু করে বুঝতে শুরু করেছেন, কেবল দলের হতাশাই দেখেছেন তিনি। এতদিনের চেপে থাকা কষ্ট মুছে দেশকে ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জয়ের আনন্দে ভাসাতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ তরুণ এই ফরোয়ার্ড। 

রিয়াল মাদ্রিদের এই খেলোয়াড় বললেন, ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ জেতানোর স্বপ্প নিয়েই বেড়ে উঠেছেন তিনি। স্বপ্নের কথা বলতে গিয়েই শোনালেন বারবার আশা ভঙ্গের বেদনার কথা। 

রেকর্ড পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে এবারের আসরে ধরা হচ্ছে শীর্ষ ফেভারিট দলগুলোর একটির হিসেবে। সার্বিয়ার বিপক্ষে বৃহস্পতিবার ম্যাচ দিয়ে কাতার বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে তিতের দল। 

ব্রাজিল শেষ পর্যন্ত কেমন করবে, তা সময়ই বলে দেবে। তবে 'হেক্সা' জয়ের জন্য দেশটির মানুষের ব্যাকুলতা সময় যত গড়িয়েছে, ততই বেড়েছে। 

২০০৬ বিশ্বকাপে ফেভারিট হিসেবে খেলতে নেমে কোয়ার্টার-ফাইনালে জিনেদিন জিদানের ফ্রান্সের কাছে হেরেছিল তারকাখচিত ব্রাজিল দল। ২০১০ সালেও শেষ আট থেকে তাদের বিদায় করে দেয় নেদারল্যান্ডস। 

ঘরের মাটিতে ২০১৪ বিশ্বকাপে সেমি-ফাইনালে তাদের রীতিমতো বিধ্বস্ত করে জার্মানি জেতে ৭-১ গোলে। সবশেষ ২০১৮ আসরে আবারও শেষ আটেই নেইমারদের পথচলা থামিয়ে দেয় বেলজিয়াম। 

সম্প্রতি ‘প্লেয়ারস ট্রিবিউন’এ বিশ্বকাপ নিয়ে গত চার আসরের কষ্টের কথা শোনা রদ্রিগো। বিশ্বকাপে নিজেদের একের পর এক ব্যর্থতার গল্পের এবার শেষ দেখতে চান ২১ বছর বয়সী এই ফুটবলার। 

“২০ বছর ধরে আমরা এই কষ্ট পাচ্ছি। ২০০৬ সালে হারের পর আমি কেঁদেছিলাম। ২০১০ বিশ্বকাপের সময় আমি ওসাসকোতে ছিলাম, দেখতাম মানুষ রাস্তায় সবুজ ও হলুদ রঙ করছে। (বিশ্বকাপের সময়) কেউ কাজ করত না। স্কুল? প্রশ্নই ওঠে না। এমন নয় যে আমি নিজেই স্কুলে যেতাম না। স্কুল বন্ধ থাকত। এমনকি শিক্ষকরাও থাকত না।” 

“২০১৪ সালে মিনাস গেরাইসে আমি বাবার সঙ্গে (সেমি-ফাইনাল) দেখেছিলাম। ওই ম্যাচের বিষয়ে কথা বলতে চাই না। এমনকি ফলাফলও না। আর ২০১৮ সালে বেলজিয়ামের কাছে হার, অমন অনুভূতি আর কখনও পেতে চাই না। ওই ম্যাচের পর আমি আমার বাবাকে একটি বার্তা পাঠিয়েছিলাম। 'এখন আমাদের অনুশীলন করতে হবে, কারণ পরেরটিতে (কাতার বিশ্বকাপে) আমি সেখানে থাকব।'” 

২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের সময় ব্রাজিলের সিনিয়র দলে অভিষেকই হয়নি রদ্রিগোর। কিন্তু ওই সময়েই পরের বিশ্বকাপে নিজেকে দেখতে পাচ্ছিলেন তিনি। তার চাওয়া, স্বপ্নের সেই পরিধি আরও ছাড়িয়ে যাক। 

“আমি জানি, ব্রাজিল দলে কারও জায়গাই নিশ্চিত নয়, তাই না? কারোরই নয়। (২০১৮ সালে) আমার এমনকি আমার সিনিয়র দলে অভিষেকও হয়নি। কিন্তু ওই চাওয়ার জন্য আপনি কি আমাকে দোষ দিতে পারবেন? তখন আমি ছিলাম ছোট্ট এক বাচ্চা, যার গায়ে ছিল সেলেসাওদের নকল জার্সি আর মনে একটা স্বপ্ন।” 

"কথার যে শক্তি আছে, আমিই তার জীবন্ত প্রমাণ। এই যে বিশ্বকাপ চলছে এবং আমি এখানে আছি। আমি দেখতে পাচ্ছি যে ব্রাজিলের হয়ে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিচ্ছি আমি। শুধু আশা করি যে, আমার এই স্বপ্ন যেন চিরকাল বর্তমান হয়ে থাকে। এই স্বপ্ন যেন আমার কাছে কখনও একঘেয়ে না হয়ে যায়। আমি কখন জেগে উঠতে চাই না।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক