বিশ্বকাপ জিতে তিতের বিদায় রাঙাতে চান রাফিনিয়া-রিশার্লিসনরা

কাতার বিশ্বকাপ দিয়ে শেষ হবে ব্রাজিলের কোচ হিসেবে তিতের পথচলা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 23 Nov 2022, 01:32 PM
Updated : 23 Nov 2022, 01:32 PM

ছয় বছরের বেশি সময় ধরে ব্রাজিল কোচের দায়িত্বে আছেন তিতে। পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে তার অর্ধ যুগের পথচলা শেষ হবে কাতার বিশ্বকাপ দিয়ে। ৪৮ বছরে সেলেসাওদের প্রথম কোচ হিসেবে একই মেয়াদে টানা দুটি বিশ্বকাপে তিনি দায়িত্ব পালন করছেন। দলের সবার কাছে ‘প্রফেসর’ নামে পরিচিত তিতের বিদায়ের উপলক্ষটা স্মরণীয় করে রাখতে চান রাফিনিয়া, রিশার্লিসন, ফ্রেদরা। শিরোপা জিতে বিশ্ব মঞ্চে দুই দশকের খরা কাটাতে তারা উদগ্রীব।   

২০১৬ সালের জুনে আগের কোচ দুঙ্গার স্থলাভিষিক্ত হন তিতে। তার যাত্রা শুরু হয় ওই বছরের সেপ্টেম্বরে ২০১৮ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে একুয়েডরকে ৩-০ গোলে হারিয়ে। এখন পর্যন্ত ৭৬ ম্যাচে ব্রাজিলের দায়িত্বে তার ৫৭ জয়ের প্রথমটি ছিল সেটি। তার মেয়াদে মাত্র পাঁচটি ম্যাচ হেরেছে দল।

কাতার আসরে ব্রাজিল ফাইনাল খেলতে পারলে আরও সাত ম্যাচে দায়িত্ব পালন করবেন ৬১ বছর বয়সী তিতে। তার কোচিংয়ে চার বছর আগে রাশিয়া বিশ্বকাপে দল বিদায় নিয়েছিল কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে। পরের বছর জিতেছিল কোপা আমেরিকা। দলটির হয়ে যা এখনও পর্যন্ত তিতের সেরা সাফল্য। 

তিতের আগে সবশেষ দায়িত্বের একই মেয়াদে টানা দুটি বিশ্বকাপের ব্রাজিলে কোচ ছিলেন মারিও জাগালো। তার কোচিংয়ে ১৯৭০ মেক্সিকো আসরে শিরোপা জেতা ব্রাজিল চার বছর পর জার্মানি আসরে হয়েছিল চতুর্থ।  

আগামী বৃহস্পতিবার সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে কাতার বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে ব্রাজিল। তার আগে ফিফাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিতের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করলেন ব্রাজিলের চার খেলোয়াড়। জানালেন কোচকে ট্রফি জয়ের হাসিমুখে বিদায় দেওয়ার প্রত্যয়।

ফ্রেদ 

“তিনি অসাধারণ একজন কোচ। তার সামর্থ্য কতটা, আমরা তা জানি। তার সঙ্গে এতটা সময় কাজ করতে পেরে এবং অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে পেরে আমি খুবই সম্মানিত বোধ করছি। তাকে আমি অনেক শ্রদ্ধা করি।” 

"তার কাছ থেকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যেটা শিখেছি, সেটা তার মানবিক গুণাবলি। তিনি খুব ভালো একজন মানুষ, যিনি কিপার থেকে কিটম্যান- সবার সঙ্গে একইরকম ব্যবহার করেন। তিনি কাজে খুবই মনোযোগী। সর্বোপরি তিনি এমন একজন আমরা যার আশেপাশে থাকতে ভালোবাসি।”

ব্রুনো গিমারেস 

“তার সঙ্গে আমার একটি ছবি আছে, যা ভাইরাল হয়েছিল। আমি আউদাক্সের (সাও পাওলোর একটি ছোট ক্লাব) যুব দলে ছিলাম, তিনি তখন করিন্থিয়ান্সের কোচ হিসেবে অনেক কিছু জিতছিলেন। তার সঙ্গে আমি একটি ছবি তুলতে চাইলাম, যা একজন ব্যক্তি এবং কোচ হিসেবে তার প্রতি আমার শ্রদ্ধার বিষয়টি তুলে ধরে। তিনি খুব বুদ্ধিমান লোক। ইউরোপে আমি অনেক কোচের সঙ্গে কাজ করেছি, তাদের চেয়ে তার বাস্তব কৌশলগত অন্তর্দৃষ্টি ও জ্ঞান বেশি।”

রাফিনিয়া 

“প্রথমত, আমি তাকে ধন্যবাদ জানাতে চাই প্রথম কোচ হিসেবে আমাকে জাতীয় দলে সুযোগ দেওয়ার জন্য এবং আমাকে এখানে কাতারে নিয়ে আসার জন্য। তিনি না হলে আমি এখানে থাকতাম না। তিনি আমার ক্যারিয়ারে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন। সেলেসাওদের সঙ্গে থাকার সময় তিনি আমাকে যা শেখান শুধু সেজন্য নয়, আমি আমার ক্লাবে যা নিয়ে যেতে পারি তার জন্যও। তিনি আমাকে অনেক আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছেন এবং আত্মবিশ্বাসের মাত্রা যতটা সম্ভব উঁচুতে রাখতে আমাকে প্রয়োজনীয় সবকিছুও শিখিয়েছেন।”

রিশার্লিসন 

“তিনি আমাদের কাছে বাবার মতো। তিনি সবসময় আমাদের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করেছেন এবং জাতীয় দলের একটি উষ্ণ পরিবেশ তৈরি করেছেন। তিনি সেই ব্যক্তিদের মধ্যে একজন যিনি অন্যের প্রশংসা করেন কিন্তু অপ্রিয় সত্য বলতে ভয় পান না।” 

"আমরা তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। আমি সাহসী, বুদ্ধিমান এবং কৌশলগতভাবে শৃঙ্খলাবদ্ধ হওয়ার কথা বলছি। আমরা পছন্দ করি বা না করি, এটি তার শেষ বিশ্বকাপ এবং তিনি যেন হাসিমুখে বিদায় নিতে পারেন, সেজন্য আমরা যা কিছু পারি সবটা করতে যাচ্ছি।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক