জঙ্গি ছিনতাই: কাশিমপুর কারাগারে নিরাপত্তা জোরদার

কাশিমপুর কারাগারে প্রবেশের সময় দর্শনার্থীদের ব্যাপক তল্লাশি করা হচ্ছে; পর্যবেক্ষণে রয়েছে সিসি ক্যামেরা।

গাজীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Nov 2022, 09:27 AM
Updated : 21 Nov 2022, 09:27 AM

ঢাকার আদালত প্রাঙ্গণ থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনার পর কাশিমপুর কারাগারের প্রধান ফটকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

সোমবার সকালে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রধান ফটকে গিয়ে আরপি চেকপোস্টের দায়িত্বে থাকা কারারক্ষীদের ব্যাপক তৎপরতা দেখা গেছে। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে জনবলও বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এছাড়া গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন কারাগার এলাকা নজরদারি রাখছেন।

কাশিমপুর কারাগারের আরপি চেকপোস্ট এ নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কারারক্ষী এম এইচ রানা বলেন, “ওই ঘটনার পর থেকে কাশিমপুর কারাগারে প্রবেশের সময় দর্শনার্থীদের ব্যাপক তল্লাশি করা হচ্ছে। দর্শনার্থীদের নাম ঠিকানা ও লিপিবদ্ধ করে রাখা হচ্ছে। সিসি ক্যামেরাও পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।”

রোববার সকালে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সাত সদস্যকে ঢাকায় নেওয়া হয়। ঢাকার মোহাম্মদপুর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দায়ের হওয়া একটি মামলায় তাদের শুনানির দিন ধার্য ছিল।

পরে ভরদুপুরে পুরান ঢাকার জনাকীর্ণ আদালত থেকে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নেতা মইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান এবং আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাবকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাদের সহযোগীরা।

শামীম ও সিদ্দিক দুজনই প্রকাশনীর প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় মৃতুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। লেখক অভিজিৎ রায় হত্যা মামলাতেও আবু সিদ্দিক সোহেলের ফাঁসির রায় হয়েছে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, রোববারের ঘটনায় গাজীপুর মহানগর পুলিশের দায়িত্বে অবহেলার কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তারপরও তারা বিষয়টি নজরদারিতে রেখেছেন। এছাড়া কাশেমপুর কারাগার এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশও মোতায়েন করা হয়েছে।

কাশিমপুর কারাগার পার্ট -২ এর ডেপুটি জেল সুপার আলী আফজাল বলেন, “আমাদের কারাগারে সব সময় নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকে। তবে রোববারের ঘটনার পর নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও বাড়ানো করা হয়েছে। স্বাভাবিক সময়ে আরপি চেকপোস্টে পাঁচ-ছয় জন দায়িত্বে থাকলেও এখন ১০ জন নিয়োজিত করা হয়েছে।”

কারাগারে আসামি পাঠানোর ক্ষেত্রেও বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক