এক শতাংশ স্বাক্ষরের বিষয়ে ‘রিট করবেন’ হিরো আলম

স্বতন্ত্র প্রার্থীর এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর নেওয়ার নিয়মটিকে ‘কালো আইন’ বললেন হিরো আলম।

জিয়া শাহীনবগুড়া প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Jan 2023, 04:46 PM
Updated : 18 Jan 2023, 04:46 PM

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর জমা দেওয়ার বিধানকে চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করবেন বলে জানিয়েছেন আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। 

হাই কোর্টের আদেশে প্রার্থিতা ফিরে পেয়ে প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে বুধবার হিরো আলম এ কথা জানান। 

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও বগুড়া জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল ইসলামের কাছ থেকে দুপুরে একতারা প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে নির্বাচনী মাঠে ফিরেছেন হিরো আলম। 

এ সময় হিরো আলম সাংবাদিকদের বলেন, “নির্বাচন কমিশনের এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর নেওয়ার নিয়মটি ‘কালো আইন’। এই এক শতাংশ স্বাক্ষর বিষয়ে ভোটের পর উচ্চ আদালতে রীট করব।” 

প্রতীকের বিষয়ে হিরো আলম বলেন, “সিংহ প্রতীক ‘বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক আন্দোলন’ দলের নিবন্ধনকৃত – তা জানতাম না। তাই মার্কা পরিবর্তন করে একতারা মার্কা নিলাম।” 

প্রতীক বরাদ্দ নেওয়ার সময় জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মাহমুদ হাসান, বগুড়া সদর নির্বাচন কর্মকর্তা এ এস এম জাকির হোসেন উপস্থিত ছিলেন। 

এর আগে দুপুর ১২টায় হিরো আলম জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে জেলা নির্বাচন অফিসে আদালতের রায়ের কপি জমা দেন। পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আসেন।

নির্বাচন সুষ্ঠু হলে জয়ের বিষয়ে শতভাগ আশাবাদী বলে জানিয়ে তিনি বলেন, “বিগত নির্বাচনে আমার লোক কম ছিল, তাই হামলা করেছিল। এবার কর্মী বাহিনী অনেক বেশি। হামলা হলে পাল্টা হামলা করব।” 

প্রতীক বরাদ্দের পর জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল ইসলাম প্রার্থী হিরো আলমকে ‘অদম্য হিরো আলম’ উল্লেখ করে বললেন, “হিরো আলমের মানসিক স্পিরিট দারুণ। তার জন্য শুভকামনা রইল।” 

২০১৮ সালের নির্বাচনেও তার মনোনয়নপত্র একই কারণে বাতিল হলে উচ্চ আদালতের নির্দেশে ফিরে পান। এবারও একই ঘটনা ঘটল। 

হিরো আলম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশনের এই নিয়মকে প্রহসন, হয়রানিমূলক এবং সাংঘর্ষিক বলে উল্লেখ করেন। 

এটি ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, জাতীয় সংসদ ও উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্র

প্রার্থীদের ক্ষেত্রে মোট ভোটারের এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর প্রয়োজন হয়। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বেলায় তা করা হয় না। 

“আবার উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের বেলায় দলীয় প্রতীক প্রযোজ্য। কিন্তু উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যদের দলীয় প্রতীক দেওয়া হয় না। একই নির্বাচনে দুই ধরনের নিয়ম কি সঠিক?” 

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক