সাত বছর পর রাবি ছাত্রলীগের কমিটি, বিরোধীদের ভাঙচুর

৩৯ সদস্যবিশিষ্ট রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিব।

রাজশাহী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 22 Oct 2023, 02:46 PM
Updated : 22 Oct 2023, 02:46 PM

প্রায় সাত বছর পর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার পর একটি অংশ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, ভাঙচুর ও প্রতিপক্ষকে মারধর করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

শনিবার রাতে কেন্দ্র থেকে নতুন নেতৃত্ব ঘোষণার পর রোববার দুপুরে সেই কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছেন সেই অংশের নেতা-কর্মীরা। 

এর আগে সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার সংলগ্ন ছাত্রলীগের দলীয় টেন্টে এসে জড়ো হন কমিটি-বিরোধী নেতা ও তাদের সমর্থক-কর্মীরা।

পরে দুপুর ১২টা দিকে পরিবহন চত্বরে নতুন কমিটির সভাপতির অনুসারী ও সাবেক সহসম্পাদক আরব হোসেনকে মারধর ও ধাওয়া দেয় প্রতিপক্ষের নেতাকর্মীরা। 

সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরার সামনেই তাকে মারধর করেন সাবেক সহসভাপতি কাজী আমিনুল হক লিংকন। এসময় সাকিবুল হাসান বাকিসহ বর্তমান কমিটির বিরোধী নেতা-কর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। 

এ ছাড়া মাদার বখশ হলে নতুন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লা হিল গালিবের কক্ষে ভাঙচুর চালায় বিরোধী নেতা-কর্মীরা। এতে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। 

১৮ সেপ্টেম্বর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) শাখা ছাত্রলীগের ২৬তম সম্মেলনের প্রায় একমাস পর শনিবার রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ৩৯ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। 

এতে মোস্তাফিজুর রহমান বাবুকে সভাপতি ও আসাদুল্লা হিল গালিবকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। 

অভিযোগ উঠেছে, সাবেক সহসভাপতি কাজী আমিনুল হক লিংকন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহিনুল ইসলাম সরকার ডন, ধর্মবিষয়ক উপসম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম দুর্জয়, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অনিক মাহমুদ বণি ও সাকিবুল হাসান বাকিসহ অন্যরা সাধারণ সম্পাদক গালিবের হলের কক্ষে ভাঙচুর চালায়। তবে তারা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। 

কাজী লিংকন বলেন, “আমরা ওই হলে (মাদার বখশ) শান্তিপূর্ণভাবে গিয়েছিলাম। কিন্তু কক্ষ ভাঙচুরের সঙ্গে আমরা জড়িত নই। এটা সাজানো নাটক। ওরাই এখন ভাঙচুর করে আমাদের নামে অভিযোগ দিতে পারে। গালিব বিয়ে করে রাজশাহীতে শ্বশুরবাড়িতে থাকে। সে কীভাবে নেতা হয়?” 

নতুন কমিটিতে সহসভাপতি পদ পাওয়া সরকার ডনও বর্তমান নেতৃত্বের বিরোধিতা করে  বলেন, “আমরা এখন রাতদিন ২৪ ঘণ্টা ক্যাম্পাসে অবস্থান করছি। ওদেরকে ক্যাম্পাসে ঢুকতেই দেব না। সেটা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বুঝবে, কমিটি বিলুপ্ত করে দেবে। কুষ্টিয়াতে হয়েছে, চট্টগ্রামে হয়েছে। সভাপতি-সেক্রেটারি ক্যাম্পাসে ঢুকতেই পারেনি। আমরাও ঢুকতে দেব না। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগকে আমরা চাপে রাখব। আমরা এই কমিটির বিলুপ্তি চাই।”

এ বিষয়ে রাবি ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বাবু বলেন, “নতুন কমিটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বস্তরের নেতা-কর্মী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী স্বাগত জানাচ্ছেন। কিন্তু কতিপয় নেতা ও কর্মী কমিটিকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন। তারা এই কমিটিকে অবাঞ্ছিত করার কেউ নন।” 

নির্বাচনের বছরে ক্যাম্পাসে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ও অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হলে সেটা শক্ত হাতে প্রতিহত করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে ছাত্রলীগের মুখোমুখি অবস্থানে সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য ও আইন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাদিকুল ইসলাম সাগর বলেন, “এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। সামনে জাতীয় নির্বাচন। এইটাকে তৃতীয় শক্তি সুন্দরভাবে কাজে লাগাবে। তারা তো এটা নিয়ে হাসাহাসি করছে। ছাত্রলীগের পক্ষের অবস্থান নিয়ে তারা ফায়দা লুটবে এবং ইন্ধন দেবে এটা খুবই স্বাভাবিক। এবং সেটিই চলছে।” 

ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা নিয়ে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ সক্রিয় আছে বলে জানিয়েছেন প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক। 

তিনি আরও বলেন, “হলে ভাঙচুরের খবর পেয়ে আমরা সেখানে গেছি। দেখছি নেতা-কর্মীরা ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়েছে। তাদের মনিটর করছি। কথা বলার চেষ্টা করছি যেন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে। এ ছাড়া প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়েছে।” 

৩৯ সদস্যবিশিষ্ট নতুন কমিটির অন্যরা হলেন, সহসভাপতি মেজবাহুল ইসলাম, শাহিনুল ইসলাম সরকার ডন, জাকিরুল ইসলাম জ্যাক, মঈনউদ্দিন রাহাত, মেহেদী হাসান মিশু, মেহেদী হাসান তায়েব, মামুন শেখ, নূর সালাম, আলতাফ সায়েম জেমস, আশিকুর রহমান আশিক, তাওহীদুল ইসলাম দুর্জয়, আল আমিন তানভীর, মোসা. তামান্না আক্তার তন্বী, আবুল বাশার আহম্মেদ, জান্নাতুল নাঈমা আকন্দ জানা, সামিউল আলম সোহাগ, মোমিন ইসলাম, শাখাওয়াত হোসেন শাকিল, জুয়েল হোসেন ও মনু চন্দ্র মোহন দেব বর্মন। 

আট যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হলেন- ভাস্কর সাহা, নাঈম আলী, নিয়াজ মোর্শেদ, আশিকুর রহমান অপু, আব্দুল্লাহ আল মামুন স্বদেশ, তাজরিন আহমেদ মেধা, সাদেকুল ইসলাম সাদিক ও শামীম হোসেন। 

সাংগঠনিক সম্পাদক কাব্বিরুজ্জামান রুহুল, আল মুক্তাদির তরঙ্গ, প্রিয়াংকা সেন মৌ, ইমরান হোসেন, বুলবুল জোয়ার্দার, জুবায়ের হাসান, নাশরাত আর্শিয়ানা ঐশী, জাহিদ হাসান সোহাগ, কাইয়ূম মিয়া।