সিরাজগঞ্জে ধর্ষণের ১৯ বছর পর ব্যক্তির যাবজ্জীবন

ধর্ষণের ফলে জন্ম নেওয়া সন্তানের ভরণপোষণের খরচ আসামির সম্পত্তি থেকে বহনের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 7 Feb 2024, 12:46 PM
Updated : 7 Feb 2024, 12:46 PM

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলায় শারীরিক প্রতিবন্ধী এক তরুণীকে ধর্ষণের ১৯ বছর পর এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

এছাড়া ধর্ষণের ফলে জন্ম নেওয়া সন্তানের ভরণপোষণের খরচ আসামির সম্পত্তি থেকে বহনের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

বুধবার সিরাজগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক বেগম সালমা খাতুন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন বলে আদালতের পেশকার মোক্তার হোসেন জানান।

দণ্ড পাওয়া মো. সোনাউল্লাহ (৫৪) কাজিপুর উপজেলার চন্দনপুর গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার বরাতে পেশকার মোক্তার বলেন, “২০০৫ সালের ১৫ জানুয়ারি দুপুরে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে ওই তরুণীর বাড়িতে যান সোনাউল্লাহ। সে সময় তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন তিনি। এতে তরুণী গর্ভবতী হয়ে পড়েন।

“পরে ওই তরুণীর পরিবার বিষয়টি জানতে পেরে সোনাউল্লাহকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেন। কিন্তু সোনাউল্লাহ বিয়ে করতে অপারগতা প্রকাশ করলে বিষয়টি স্থানীয়দের জানান স্বজনরা।”

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সোনাউল্লাহ ও তার লোকজন ভিকটিমের বাড়িঘর ভাঙচুর করেন বলে জানান পেশকার।

পরে ২০০৫ সালের ২৩ জুন স্থানীয় চেয়ারম্যানের পরামর্শে ওই তরুণীর বাবা থানায় মামলা করেন। মামলার কয়েক বছর পর তিনি মারা গেলে ভিকটিমের মা বাদী হন।

সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামিকে যাবজ্জীবনের পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়; যা অনাদায়ে তাকে আরও এক বছর কারাবাসে থাকতে হবে বলে জানান আদালতের পেশকার মোক্তার।