জেলা পরিষদ: কুমিল্লায়ও বিনা ভোটে জয়ের পথে আওয়ামী লীগ প্রার্থী

স্বতন্ত্র প্রার্থী বরুড়া উপজেলার মো.দুলাল মিয়া বলেছেন, তিনি আপিল করবেন

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Sept 2022, 02:53 PM
Updated : 18 Sept 2022, 02:53 PM

কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রার্থীর মধ্যে একজনের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় অন্যজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের পথে রয়েছেন। 

চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান বাবলু এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী বরুড়া উপজেলার মো.দুলাল মিয়ার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছিলেন।

রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে যাচাই-বাছাইয়ের শেষ দিনে কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন। একই সময়ে তিনি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মফিজুর রহমান বাবলুর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, “স্বতন্ত্র প্রার্থী দুলাল মিয়ার মনোনয়নপত্রের সমর্থনকারী সালামত উল্লা জাতীয় পরিচয়পত্র ও এফিডেভিট সহকারে আমাদেরকে অবহিত করেছেন, দুলাল মিয়ার মনোনয়নপত্রের সমর্থনকারীর ওই স্বাক্ষরটি তার নয়।

“এ ছাড়া প্রস্তাবকারীর স্বাক্ষরও জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে মিল পাওয়া যায়নি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা অনুয়ায়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী দুলাল মিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে।”

এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দুলাল মিয়া দাবি করেছেন, ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। তিনি মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়ে আপিল করবেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী বলেন, “বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর থেকেই একটি প্রভাবশালী মহল আমাকে এবং প্রস্তাব ও সমর্থনকারীকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছে। ওই মহলটি প্রভাব খাটিয়ে ষড়যন্ত্র করে আমার মনোনয়ন বাতিল করিয়েছে।”

“আর প্রস্তাব ও সমর্থনকারীরা আমার মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর করেছেন, এটার সব প্রমাণ আমার কাছে আছে। আমি রিটার্নিং কর্মকর্তার মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে আপিল করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।”

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা দুই হাজার ৬৮০ জন। এর মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ৫৩ এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৬২৭ জন।

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে সিদ্ধান্তের বিষয়ে আপিল করা যাবে ১৯ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। আপিল নিষ্পত্তি হবে ২২ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৫ সেপ্টেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ হবে ২৬ সেপ্টেম্বর।

এরই মধ্যে ৬১ জেলার মধ্যে ১৯টি জেলায় কোনো প্রার্থী না থাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় পেয়েছেন।

চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী থাকা ১৯ জেলা হল- গোপালগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ঝালকাঠি, টাঙ্গাইল, ঠাকুরগাঁও, নওগাঁ, নারায়ণগঞ্জ, ফেনী, বরগুনা, বাগেরহাট, ভোলা, মাদারীপুর, মুন্সিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, লক্ষ্মীপুর, লালমনিরহাট, শরিয়তপুর, সিরাজগঞ্জ ও সিলেট।

আরও পড়ুন:

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক