‘ব্যক্তিগত পাওনাদার কীভাবে ইউপি কার্যালয়ে তালা দেয়?’

সাবেক রেলমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে চৌদ্দগ্রামের যুবলীগ নেতা শাহজালাল মজুমদারের প্রশ্ন – ব্যক্তিগত পাওনাদার সরকারি ইউপি কার্যালয়ে তালা দেয় কীভাবে?

কুমিল্লা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 30 July 2022, 05:46 PM
Updated : 30 July 2022, 05:46 PM

শুক্রবার বিকালে উপজেলার কাশিনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর কমিটির পরিচিতি সভায় যুবলীগ নেতা শাহজালালের সমালোচনা করেন এমপি মুজিবুল হক।

ওই বক্তব্যে মুজিবুল হক বলেন, “শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ জালাল মজুমদারের কাছে মানুষ টাকা পায়। পাওনাদারদের টাকা পরিশোধ না করায় তারা ক্ষুব্ধ হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। পাওনাদারদের ভয়ে শাহজালাল ইউনিয়ন
পরিষদে যায় না।”

এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শনিবার সন্ধ্যায় শাহজালাল মজুমদার বলেন, “ইউনিয়ন পরিষদ তো আমার ব্যক্তিগত সম্পত্তি না। আমার হোটেল, ঠিকাদারিসহ বিভিন্ন ব্যবসা রয়েছে। আমার সঙ্গে মানুষের ব্যক্তিগত লেনদেন থাকতেই পারে। এমপি সাহেবের বক্তব্যের দাবি অনুযায়ী যদি কোনো পাওনাদার থাকে, তাহলে তো আমার বাড়িতে তালা দেওয়ার কথা। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ তো সরকারের সম্পত্তি। সেখানে ব্যক্তিগত পাওনাদার কীভাবে তালা দিতে পারে? কারা তালা ঝুলিয়েছে, এটা মানুষ জানে।”

গত বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে শাহজালাল মজুমদার স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানির অভিযোগ তুলে ধরেন।

শাহজালাল এসব ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বিচার প্রার্থনা করেন।
শনিবার রাতে এ বিষয়ে কথা বলতে সংসদ সদস্য মুজিবুল হকের মোবাইল ফোনে চেষ্টা করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।
পরে সংসদ সদস্যের কাছের লোক হিসেবে পরিচিত উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস ছোবহান ভূঁইয়া হাসানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “এমপি সাহেব সারাদিন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ব্যস্ত ছিলেন। এখন তিনি বিশ্রাম নিচ্ছেন। আর শুক্রবার দেওয়া বক্তব্যে তিনি (সংসদ সদস্য) এই বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন।”

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে দেওয়া বক্তব্যের কারণে শাহজালাল মজুমদারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছেন রাসেল নামে এক ব্যক্তি।

রাসেল নিজেকে আওয়ামী লীগ কর্মী দাবি করে বলেন, কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক তার নেতা। আর মোস্তফা মনিরুজ্জামান জুয়েল তার বন্ধু।

জুয়েলের অস্ত্র ধরা ছবি কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে আলোচনা ওঠে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক