কুষ্টিয়ায় লাঠিয়াল বাহিনীর ৯০ বছর পূর্তির উৎসব

হাজার হাজার দর্শক নারী-পুরুষ ও শিশুসহ সকল বয়সী জনতার ঢল নামে এই উৎসবে।

কুষ্টিয়া প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 9 Feb 2024, 02:18 PM
Updated : 9 Feb 2024, 02:18 PM

কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ মাঠে ঢোকার পথে লোকজনের জট; একটু এগোতেই প্রথম দেখা মিলল জাহানারা বেগমের সঙ্গে। ওই মাঠে শুরু হওয়া তিন দিনের ‘ওস্তাদ ভাই লাঠিখেলা উৎসব ও লোকজ মেলা’ দেখতে তিনি এসেছেন দুই সন্তানকে নিয়ে।

৯০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশ লাঠিয়াল বাহিনী এই বিশাল আয়োজন করেছে। সারা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা প্রায় অর্ধশতাধিক লাঠিয়াল দলের অংশগ্রহণে এ আয়োজন আরও সমৃদ্ধ ও উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে।

জাহানারা বলেন, “সত্যিকথা বলতে স্কুল ও কলেজগামী শিক্ষার্থীরা তাদের মস্তিস্কের সুষ্ঠু চর্চা করতে পারে না বলেই বিপথগামী হয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের আয়োজন বর্তমান প্রজন্মকে মোবাইল আসক্তি ও মাদাকাসক্তি থেকে ফিরিয়ে আনবে বলে মনি করি।”

বাংলাদেশ লাঠিয়াল বাহিনীর উৎসব উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক সাইফুল আলম রিংকীর সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে এ উৎসবের উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ শিশির কুমার রায়।

পরে জাতীয় সংগীত ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে উৎসব ও মেলার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। পুরো অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আব্দুল্লাহ আল মামুন তাজু, শাহিনা সুলতানা দ্বিজু, ও ওস্তাদ আলাউদ্দিন। 

পতাকা উত্তোলন শেষে বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ শিশির কুমার রায়, সাইফুল আলম রিংকী, বাংলাদেশ লাঠিয়াল বাহিনীর সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন তাজু ও উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য জিয়া হাসান রিপন।

এরপর শুরু হয় লাঠিখেলা। হাজার হাজার দর্শক নারী-পুরুষ ও শিশুসহ সকল বয়সী জনতার ঢল নামে এই উৎসবে।

অধ্যক্ষ শিশির কুমার রায় তার বক্তব্যে বলেন, “আমাদের সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ অনেকটাই তলানিতে ঠেকেছে; এমন ক্রান্তিলগ্নে বাংলাদেশ লাঠিয়াল বাহিনীর লাঠিখেলা ও লোকজ উৎসবে সর্বস্তরের মানুষের উপচে পড়া ভিড়ই বলে দিচ্ছে এই আয়োজনের গুরুত্ব কতটা গভীরে ঢুকে গেছে।”

উৎসবে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মুঈদ রহমান, কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের উপঅধ্যক্ষ আনছার হোসেন ও কুষ্টিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক এসএম কাদরী শাকিলসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

লাঠিখেলা উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজ মাঠে বসেছে গ্রামীণ মেলা, নাগরদোলা। নানা ধরনের খাবারের দোকানের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা।

প্রতিদিন বেলা ৩টায় শুরু হয়ে উৎসব চলবে রাত ৮টা পর্যন্ত। শনিবার রাত ৮টায় শেষ হবে এই লোকজ উৎসব।