যৌন হয়রানির অভিযোগ ছাত্রীর, 'মানহানির' মামলা জাহাঙ্গীরনগর শিক্ষকের

“আমার কাছে সব তথ্য-প্রমাণ আছে। সময়মতো আমি সব উপস্থাপন করব,” বলেন ওই শিক্ষার্থী।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 1 April 2024, 02:08 PM
Updated : 1 April 2024, 02:08 PM

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেছেন ওই বিভাগের সাবেক এক ছাত্রী। ওই শিক্ষক পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে ৫০ লাখ টাকার মানহানির মামলা করেছেন।  

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়নবিরোধী সেলে ই-মেইলে এ অভিযোগ আসে বলে সেলের প্রধান অধ্যাপক জেবউননেছা জানান।

মার্কেটিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাজু সাহার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে।

এদিনই অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ঢাকার আদালতে ‘মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য প্রচার’ করায় ৫০ লাখ টাকার মানহানির মামলা করেছেন সাজু সাহা।

যৌন নিপীড়নবিরোধী সেলে অভিযোগকারী ওই শিক্ষার্থী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আজই অভিযোগ করেছি। আমার কাছে সব তথ্য-প্রমাণ আছে। সময়মতো আমি সব উপস্থাপন করব।”

তার অভিযোগ, “সাজু সাহার জন্য আমি বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করতে পারিনি। অন্য কারণও ছিল। তবে ওনার ডিস্টার্বেন্স ছিল মেজর, স্নাতকোত্তর না করার পেছনে। স্নাতকের শেষ সেমিস্টার থেকেই আমাকে হয়রানি শুরু করেন; ফলস্বরূপ শেষ সেমিস্টারের ফলাফলও ভালো হয়নি।”

এর আগে ২৩ মার্চ এক ফেইসবুক পোস্টে অভিযোগকারী শিক্ষার্থী নিজ বিভাগ মার্কেটিংয়ের ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি ও পরীক্ষায় নম্বর কম দেওয়ার অভিযোগ তোলেন।

পরদিন মিরপুর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন সহকারী অধ্যাপক সাজু সাহা।

অভিযোগের বিষয়ে সাজু সাহা বলেন, “যে আমার ব্যাপারে অভিযোগ করেছে সে সম্পূর্ণ মিথ্যা তথ্য প্রচার করে আমার মানহানি করেছে। আমি তার বিরুদ্ধে এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং প্রক্টর বরাবর অভিযোগ করেছি। এর আগে থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেছিলাম। কিন্তু সে আমার মানহানি করেই যাচ্ছে, তাই আজ আদালতে মামলা করেছি।”

তিনি বলেন, “প্রথমে রাজধানীর দারুস সালাম থানায় মামলা করতে গেলে সেখান থেকে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেয়। আদালত আমার মামলাটি নিয়েছে।”

বাদী পক্ষের আইনজীবী হুমায়ুন কবীর ঢালি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মুখ্য মহানগর হাকিম, আদালত নম্বর ২৪ এ মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত মামলা গ্রহণ করে তদন্তের জন্য বলেছে।”