বিশৃঙ্খলা করলে চুপ থাকতে পারি না: কাদের

“আন্দোলনের নামে ভাঙচুর অগ্নি সংযোগ করে তারা জনজীবনে দুর্ভোগ ডেকে আনবে, রাস্তা অবরোধ করে বিশৃঙ্খলা ডেকে আনবে এই অবস্থায় আমরা চুপ থাকতে পারি না।”

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 14 Jan 2023, 01:50 PM
Updated : 14 Jan 2023, 01:50 PM

বিএনপি ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ‘চোরাই পথে’ ক্ষমতা দখলের চেষ্টা করছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ নেতাদের আরও শক্ত অবস্থানে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার বিকালে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সভায় তিনি বলেন, “তারা (বিএনপি) জানে শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জনে দেশের মানুষ খুশি, আর বিএনপির প্রতি জনগণের কোনো আস্থা নেই। আগামী নির্বাচনেও জেতার কোনো সম্ভাবনা নেই, সেটা তারা জানে। তাই তারা দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চয়।

“তাদের উদ্দেশ্য ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে শেখ হাসিনার সরকারকে হটাবে। দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবে। এর মধ্য দিয়ে তারা সরকার পতনের ক্ষেত্র প্রস্তুত করবে।”

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, “আমরা ক্ষমতায় রয়েছি তাই এই দেশের জনগণের জানমালের নিরাপত্তার বিষয়টি অবশ্যই আমাদের দেখতে হবে। আন্দোলনের নামে ভাঙচুর অগ্নি সংযোগ করে তারা জনজীবনে দুর্ভোগ ডেকে আনবে, রাস্তা অবরোধ করে বিশৃঙ্খলা ডেকে আনবে এই অবস্থায় আমরা চুপ থাকতে পারি না।”

শনিবার বেলা ১২টা থেকে বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত গণভবনে জাতীয় কমিটি ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই বৈঠকের পর দলের সহযোগী সংগঠন ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের নিয়ে সভা করেন ওবায়দুল কাদের।

বৈঠকের শুরুতে সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন, “ইদানিং আমরা লক্ষ্য করছি হঠাৎ করে বাস পোড়ানো, যেটা ফরিদপুরে ঘটেছে…। সেখানে পুলিশের ওপর আক্রমণ করেছে, সেখানে সবাই এক বাক্যে বলেছে, পুলিশ আক্রমণকারী নয়, তারা আক্রান্ত।”

বিএনপি ওয়ান-ইলেভেনের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে মন্তব্য করে কাদের বলেন, “বিএনপি ভেতরে ভেতরে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিলেও নির্বাচনে জিতবে এমন কোনো আশ্বস্ত হতে পারছে না। তাই তারা ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে চোরাই পথে ক্ষমতা দখলের চেষ্টা করছে।

“একটা ওয়ান-ইলেভেন হয়েছে, আরেকটা ওয়ান-ইলেভেনের পুনরাবৃত্তি করে ‘বেনিফিসিয়ারি’ হবে। এই লক্ষে তারা অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে।”

নিজেদের ‘প্রস্তুত রাখার’ প্রত্যয় জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা যাদের ওয়াদা দিয়ে জনগণের ভোট নিয়েছি, তাদের কাছে আমাদের দায় রয়েছে। আন্দোলনের নামে সহিংসতা নাশকতা হলে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে, জনগণের জানমালের নিরাপত্তা দিতে হবে। সেজন্যই আমরা আজকে এই সভা ডেকেছি। তারা যত কথাই বলুক, আমরা আমাদের অবস্থানে সতর্ক আছি।

“আজকে আমাদের দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে ১২টা থেকে সাড়ে চারটা পর্যন্ত আমাদের নেত্রী সভা করেছে। সভা শেষে আমরা এখানে যৌথ সভায় এসেছি। আমরা আরো সতর্ক থাকব, আমাদের নেতাকর্মীদের আরও সুদৃঢ় করতে হবে। আরও শক্ত অবস্থানে থাকতে হবে। যে কোনো ধরনের নাশকতা করে দেশকে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পায়তারা করতে চাইলে প্রতিরোধ করা হবে, প্রতিহত করা হবে।”

যুক্তরাষ্টের একজন মন্ত্রী পদমর্যাদার কর্মকর্তার বাংলাদেশে আসার প্রসঙ্গ তুললে সেতুমন্ত্রী বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের একজন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী, যিনি দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্য এশিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত। তিনি আসতেই পারেন, সফর বিনিময় হতেই পারে। এটা একটা স্বাভাবিক বিষয়, এটা নিয়ে নতুন করে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই।”

“তিনি মন্ত্রীদের সঙ্গে, বিশেষ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবেন; এখানে আমাদের পার্টির কোনো বিষয় না। আসছেন, উভয়ের কথা বলুক, শুনি কী বলে। প্রয়োজন হলে ভেবে দেখব”, বলেন তিনি।

যৌথ সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দীপু মনি, সাংগঠনি সম্পাদক আহমেদ হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সুবহান গোলাপ, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক