ক্ষমতাসীনদের ‘বাজার সিন্ডিকেট’ আরও বেপরোয়া: রিজভী

রিজভী বলেন, "মাছের যে মাংসটা আলাদা সরিয়ে রেখে শুধু পাংগাস মাছের কাটা বিক্রি হয়েছে এই ঢাকা শহরে"

নিজস্ব প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 11 Feb 2024, 10:04 AM
Updated : 11 Feb 2024, 10:04 AM

ক্ষমতাসীন দলের দৌরাত্মে ‘বাজার সিন্ডিকেট’ আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, “ক্ষমতাসীন দলের সিন্ডিকেট আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে লুটপাটে মেতে উঠেছে। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য যেমন চাল, ডাল, তেল, চিনি, শাকসবজী, মাছ-মাংসসহ সব জিনিসের দাম বেড়ে যাচ্ছে উর্ধ্বশ্বাসে।”

রোববার দুপুরে রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে বাজারের পরিস্থিতি তুলে ধরে রিজভী বলেন, “শুধু সরকারি দলের সিন্ডিকেটের কারণে এই ভরা মৌসুমে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজির নিচে কোনো সবজি পাওয়া যাচ্ছে না।”

মাছ ও মাংস প্রান্তিক মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির এই বাজারে মানুষ এখন মাছের কাঁটা কিনে খাচ্ছে। ঘটনাটা সত্য, এটা অ্যালিগরি নয়, কোনো রূপক কথা বলছি না। শুধু পাংগাস মাছের কাটা বিক্রি হয়েছে এই ঢাকা শহরে, মুরগীর বদলে মুরগীর চামড়া ও ঠ্যাং-পা সেটা কিনে খাচ্ছে।”

বাড়িভাড়া বাড়ায় শহরের ভাড়াটিয়াদের দুর্ভোগের কথাও তুলে ধরেন রিজভী।

তিনি বলেন, “জনস্বার্থের কথা বিবেচনায় না নিয়ে এর মধ্যে বেশ কয়েকবার বেআইনিভাবে বাড়ানো হয়েছে গ্যাস-বিদ্যুৎ-পানির দাম। আর বাড়িভাড়া বৃদ্ধি হচ্ছে জ্যামিতিক হারে। বাড়িওয়ালারা বাড়ি ভাড়া বাড়িয়েই যাচ্ছেন। এখানে মধ্যবিত্ত যারা চাকরি করেন, কর্মজীবী মানুষ, তারা অসহায় অবস্থার মধ্যে পড়েছেন। তাদেরকে হয়ত সামনে ফুটপাতে থাকতে হতে পারে।

“বাড়িভাড়া বৃদ্ধির ক্ষেত্রে কোনো নীতিমালা নেই। অথচ সচিবরা ডুপ্লেক্স বাড়িতে থাকেন মাসিক মাত্র সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা ভাড়ায়।”

রিজভী কারাগারে মারা যাওয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের তালিকা তুলে ধরে বলেন, “এরা ২৮ অক্টোবরের পূর্বাপরে কারাগারে চিকিৎসা না পেয়ে, ওষুধ না পেয়ে বা রিমান্ডে, নির্যাতনের মুখে কারাগারে মৃত্যুবরণ করেছেন।”

এক দফার আন্দোলন চলবে জানিয়ে রিজভী বলেন, শিগগিরই নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক, আব্দুল কুদ্দুসসহ কেন্দ্রীয় ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।