আলু ভর্তা কি হিমায়িত করা যায়?

অবশ্যই আলু ভর্তা ডিপ ফ্রিজে রাখা যায়। তবে জানতে হবে কিছু কৌশল।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Nov 2023, 09:04 AM
Updated : 29 Nov 2023, 09:04 AM

আলু ভর্তা প্রায় সবারই খুব পছন্দের খাবার। তবে অনেক সময় বেঁচে যাওয়া আলু ভর্তা সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে না পারার ফলে নষ্ট হয়ে যায়।

এক্ষেত্রে অন্যান্য খাবার ডিপ ফ্রিজে রাখার প্রচলন থাকলেও, আলু ভর্তা কখনও বরফ করে রাখার কথা হয়ত মাথায় আসে না।

রিয়েলসিম্পল ডটকমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে খাদ্য-বিষয়ক লেখক লিসা মিলব্র্যান্ড বলছেন, আলু ভর্তাও ডিপ ফ্রিজে রাখা যায়। তবে জানতে হবে সঠিক পন্থা।

আলু ভর্তা ফ্রিজিং বা হিমায়িত করার কৌশল

যদি আলু ভর্তা সংরক্ষণ করতে হয় তবে রাখতে হবে ডিপ ফ্রিজে। ‘ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অফ এগ্রিকালচার’য়ের তথ্যানুসারে, হিমায়িত আলু ভর্তা এক বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়।

সুরক্ষিত পাত্র বা ব্যাগ ব্যবহার

ফ্রিজে খাবার সুরক্ষিত রাখার জন্য ফ্রিজার ব্যাগ অথবা পাত্র পাওয়া যায়। এগুলো খাবারের মান ও গুণ ভালো রাখতে সহায়তা করে। এসব পাত্র বা ব্যাগ ব্যবহারের মাধ্যমে খাবারের শুষ্কভাব অথবা বাজে দুর্গন্ধ থেকে সুরক্ষিত রাখা যায়।

আগে ঠাণ্ডা করে নেওয়া

প্রথমে, ভর্তা করা আলু ঠাণ্ডা করে নিতে হবে। খুব গরম খাবার কখনও ফ্রিজে ঠান্ডা হতে দেওয়ার জন্য রাখা উচিত নয়। এতে খাবার নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ঝুঁকি থাকে।

বায়ুরোধী ভাবে সংরক্ষণ করা

খাবার সংরক্ষণ করার ক্ষেত্রে ফ্রিজার ব্যাগ বা স্টোরেজ কন্টেইনারে যতটা সম্ভব কম বাতাস থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বাতাস থাকা অবস্থায় খাবার সংরক্ষণ করা হলে তা ‘ফ্রিজার বার্ন’য়ের সৃষ্টি করে। তাই যতটা সম্ভব বায়ুরোধীভাবে সংরক্ষণের চেষ্টা করতে হবে।

ক্রিম বা বাটার মুছে না ফেলা

আলু ভর্তা স্বাভাবিকভাবেই ফ্রিজে সংরক্ষণ করা যায়। আর সংরক্ষণের সময় তাতে বাটার অথবা ক্রিম যোগ করলে ‘ফ্রিজার বার্ন’ থেকে আলুকে সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করে।

হিমায়িত আলু ভর্তা পরে ব্যবহারের উপায়

আলু ভর্তা উপরের পদ্ধতি অনুসারে হিমায়িত করা হলে মান ভালো থাকে এবং অন্য খাবারে ব্যবহার করা যায়।

আর খাওয়ার জন্য ঘরের তাপমাত্রায় রেখে গলানো গেলে সবচেয়ে ভালো। তবে এক্ষেত্রে সময় লেগে যাবে অনেক।

ধীরে আলু ভর্তা গরম করা

চুলা, মাইক্রোওয়েভ অথবা স্লো কুকার যেখানেই আলু ভর্তা গরম করা হোক না কেনো একই পদ্ধতিতে করতে হবে। আলু ভর্তা গরম করতে হবে কম তাপে, ধীরে ধীরে এবং তা ফুটে ওঠা পর্যন্ত।

স্লো কুকারে গরম করতে চাইলে প্রায় দুই ঘণ্টার মতো সময় নিয়ে আলু ভর্তা গরম করতে হবে।

বাড়তি বাটার বা ক্রিম যোগ করা

ভর্তা করা আলু পুনরায় গরম করার পরে যদি দেখতে কিছুটা শুকনা মনে হয় তাহলে এতে সামান্য তেল, মাখন বা ক্রিম যোগ করা যেতে পারে। এতে খাবারে পুনরায় সতেজ ভাব আসবে।

আরও পড়ুন

Also Read: আলু সিদ্ধ করার ছয় ভুল

Also Read: বিদ্যুৎ চলে গেলেও ফ্রিজে রাখা খাবার ভালো রাখার পন্থা

Also Read: ফ্রিজে মাংস সংরক্ষণের যত ভুল