‘জোর করে’ চাকরি দিয়েছেন দুদকের চাকুরিচ্যুত শরীফ, সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

দুদকের দুটি মামলার আসামিরা একগুচ্ছ অভিযোগ আনেন আলোচিত এ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

চট্টগ্রাম ব্যুরোবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 16 Nov 2022, 02:34 PM
Updated : 16 Nov 2022, 02:34 PM

আলোচিত চাকুরিচ্যুত কর্মকর্তা শরীফ ‍উদ্দিনের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে হয়রানির অভিযোগ এনেছেন কর্ণফুলী গ্যাসের সাবেক মহাব্যবস্থাপকসহ তিনজন; যাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলা চলছে।

বুধবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে তারা এমন অভিযোগ করেন, যাদের বিরুদ্ধে ২০২১ সালে বাদী হয়ে মামলা করেছিলেন দুদকের চাকুরিচ্যুত উপ সহকারী পরিচালক শরীফ।

সম্প্রতি বড় ভাইয়ের মুদি দোকানে বসার খবর সংবাদমাধ্যমে আসার পর আবার আলোচনায় আসেন গত ফেব্রুয়ারিতে চাকুরিচ্যুত এ কর্মকর্তা। এরপর তাকে অনেকগুলো কোম্পানি চাকরির প্রস্তাব দেয়, যেগুলোর মধ্যে থেকে তিনি একটি বেসরকারি ভেটেরিনারি মেডিসিন ফার্মে ৮০ হাজার টাকা বেতনের চাকরিতে যোগ দেবেন বলে খবর বেরিয়েছে।

এরমধ্যেই বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে শরীফের বিরুদ্ধে তার শাশুড়ির নামে থাকা বিচ্ছিন্ন গ্যাস সংযোগ আবার দিতে চাপ প্রয়োগ, এ সংক্রান্ত জরিমানা মওকুফ করানোর চেষ্টা, ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে কেজিডিসিএল এ স্বজনদের চাকরি দেওয়া এবং অবৈধভাবে দুটি দোকানের মালিকানা চাওয়ার অভিযোগ আনা হয়।

এসব অভিযোগ করেন কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (কেজিডিসিএল) সাবেক মহাব্যবস্থাপক মো. সারওয়ার হোসেনসহ দুই জন। তার সঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন কর্ণফুলী গ্যাসের টেকনিশিয়ান দিদারুল আলম এবং আরএফ বিল্ডার্স নামের আবাসন কোম্পানির কর্ণধার দেলোয়ার হোসেন, যার বিরুদ্ধেও ঢাকায় দুদকের মামলা রয়েছে।

দুদক ২০২১ সালের ১০ জুন সাবেক প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীর ছেলের নামে গ্যাস সংযোগ দেওয়া ও স্থানান্তরের অভিযোগে কর্ণফুলী গ্যাসের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক সারওয়ার, সাবেক ব্যবস্থাপক মুজিবুর রহমান, সাবেক মহাব্যবস্থাপক (বিপনন) মোহাম্মদ আলী চৌধুরী ও টেকনিশিয়ান দিদারুল আলমকে আসামি করে মামলা করেছিল। এতে আসামি ছিলেন কর্ণফুলী গ্যাসের গ্রাহক সাবেক মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি’র ছেলে মুজিবুর রহমান।

এ মামলার বাদী ছিলেন সেসময় চট্টগ্রামে দুদকের উপ সহকারী পরিচালক শরীফ উদ্দিন। ওই সময় সারওয়ার ও মুজিুবরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

সংবাদ সম্মেলনে সারওয়ারের, ২০১৭ সালে শরীফের শাশুড়ির নামে থাকা অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করেছিল কেজিডিসিএল। এরপর শরীফ জরিমানা মওকুফ এবং পুনরায় সংযোগ দেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ দিতে থাকেন।

তা না করায় ‘ক্রোধের বশবর্তী হয়ে’ শরীফ তাদের বিরুদ্ধে ওই মামলাটি করেছিল বলে দাবি তার।  

তার দাবি, দুদকের মামলায় আনা অভিযোগ অনুযায়ী গ্যাস সংযোগ স্থানান্তরের কারণে রাষ্ট্র কিংবা কেজিডিসিএল’র কোন আর্থিক ক্ষতি হয়নি।

সংবাদ সম্মেলনে টেকনিশিয়ান দিদারুল বলেন, “গ্যাস সংযোগ স্থানান্তর করার কোনো সুযোগ আমার নেই। আমি শুধু নথিতে লিখেছিলাম, স্থানান্তরের আবেদন করেছে। এটার জন্য আমি কিভাবে মামলার আসামি হই।”

সংবাদ সম্মেলনে সাবেক মহাব্যবস্থাপক সারওয়ার কেজিডিসিএলের কর্মকর্তাদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে দুদক চট্টগ্রাম অফিসের ছাড়পত্র নিয়ে শরীফ ‘মিথ্যাচার করেছেন’ বলে দাবি করেন।

তার অভিযোগ, “দুদকে থাকার সময় শরীফ ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে তার খালাত ভাই শাহাবউদ্দিনকে আউট সোর্সিং প্রক্রিয়ায় ড্রাইভার হিসেবে এবং আপন ছোট ভাই শিহাব উদ্দিন সবুজকে ডেটা এন্ট্রি অপারেটর হিসেবে কেজিডিএলে নিয়োগ পাইয়ে দেন।”

আউটসোর্সিং প্রক্রিয়ায় নিয়োগ পাওয়া তার খালাত ভাই শাহাবউদ্দিনকে স্থায়ী নিয়োগ দেওয়ার জন্যও চাপ দেন বলে অভিযোগ তার।

সংবাদ সম্মেলনে আরএফ বিল্ডার্সের মালিক দেলোয়ার হোসেনের অভিযোগ, অবৈধ অর্জনের দুদকের মামলায় ‘চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়ার’ প্রস্তাব দিয়ে  চট্টগ্রামের ষোলশহর ২ নম্বর গেইট এলাকায় তার কোম্পানির একটি ভবনের নিচে দুটি দোকান দাবি করেন শরীফ।

“রাজি না হওয়ায় মূলত মামলা করেছিলেন শরীফ। হয়রানি করেছিলেন স্ত্রীকেও।“

এসব অভিযোগের বিষয়ে শরীফ কোন বক্তব্য দেননি। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, “এগুলো বিচারাধীন মামলা। সেহেতু এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নাই, যা বোঝার আপনারা বুঝে নেন, কারণ - দেয়ার ইজ এ লট টু সেয়িং ‘নো’।”

আরও পড়ুন:

Also Read: অবৈধ সংযোগ: কর্ণফুলী গ্যাসের জিএমসহ গ্রেপ্তার ২

Also Read: কর্মকর্তা গ্রেপ্তারের পর কর্ণফুলী গ্যাস কোম্পানিতে বিক্ষোভ

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক