‘ব্যর্থতায় গৌরব নেই’, বাজবল নিয়ে স্টোকস-ম্যাককালামদের ধুয়ে দিলেন বয়কট

বিশাখাপাত্নাম টেস্টে ইংল্যান্ডের পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাটিং করা উচিত ছিল বলে মনে করেন দেশটির সাবেক এই অধিনায়ক।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Feb 2024, 11:48 AM
Updated : 6 Feb 2024, 11:48 AM

ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে রান তাড়ায় ইংল্যান্ডের আগ্রাসী ব্যাটিং মোটেও পছন্দ হয়নি জেফ বয়কটের। ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, বেন স্টোকসরা আক্রমণাত্মক ঘরানার ক্রিকেটে বুঁদ হয়ে আছেন বলে মনে করেন তিনি। সাবেক এই ইংলিশ অধিনায়ক উত্তরসূরিদের মনে করিয়ে দিলেন, জিততে না পারলে বিনোদনদায়ী ক্রিকেটের কোনো মূল্য নেই।

হায়দরাবাদে প্রথম টেস্ট জিতে সিরিজ শুরুর পর বিশাখাপাত্নামে দ্বিতীয় টেস্টে ১০৬ রানে হারে ইংল্যান্ড। ৩৯৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ম্যাচের চতুর্থ দিন সোমবার ২৯২ রানে গুটিয়ে যায় সফরকারীরা।

নিউ জিল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান ম্যাককালাম ২০২২ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর এবং অধিনায়ক স্টোকসের হাত ধরে আগ্রাসী ঘরানার টেস্ট খেলা শুরু করে ইংল্যান্ড। ম্যাককালামের ডাক নাম ‘বাজ’ অবলম্বনে এটি নাম পেয়ে গেছে ‘বাজবল।’

গত বছর অ্যাশেজের সময়ও ‘বাজবল’ কৌশলের সমালোচনা করেছিলেন বয়কট। বিশাখাপাত্নাম টেস্টে হারের পর দা টেলিগ্রাফে লেখা কলামে এই কৌশলকে ফের কাঠগড়ায় তুললেন ইংলিশ ব্যাটিং গ্রেট। এই ম্যাচে ইংল্যান্ডের পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাটিং উচিত ছিল বলে মনে করেন করেন তিনি।

“ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ও বেন স্টোকস আক্রমণ, আক্রমণ ও আক্রমণে বুঁদ হয়ে রয়েছে। তারা যেন বলছে, ‘যদি আমরা জিততে নাও পারি, আমরা বরং গৌরবময় ব্যর্থতার পর্যায়ে থাকব।’ কিন্তু ব্যর্থতা বা পরাজয়ে কোনো গৌরব নেই। ইংল্যান্ড ম্যাচ ছুড়ে এসেছে। বাজবল ব্যর্থ ছিল।”

রান তাড়ায় ইংল্যান্ডের প্রথম ৯ জনই দুই অঙ্ক স্পর্শ করেন। তবে চল্লিশ পার করতে পারেন স্রেফ একজন। সেই জ্যাক ক্রলিও আউট হয়ে যান ৭৩ রান করে। যে কোনো একজনের বড় সেঞ্চুরি করা উচিত ছিল বলে মনে করেন বয়কট।

“ওভারপ্রতি পাঁচ করে রান করা বিনোদনদায়ক, কিন্তু অনেক ব্যাটসম্যান ভালো শুরুর পর তাদের উইকেট ছুড়ে এসেছে। প্রায় ৪০০ রান তাড়া করে জেতার সেরা উপায় হলো ব্যাটসম্যানদের একজনের বড় সেঞ্চুরি করা। ভালো বোলারদের তাড়া করতে যাওয়া এবং দ্রুত রান করা ঝুঁকির।”

বয়কট আলাদা করে বললেন জো রুটের কথা। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানের ব্যাটিংয়ের ধরন দেখে খুবই হতাশ তিনি।

“বাজবলের কারণেই রুট তার উইকেট হারিয়েছে। ব্যাটিংয়ে নামার পর থেকে সে বেরিয়ে এসে উড়িয়ে মারার চেষ্টা করছিল এবং খুব তাড়াতাড়িই সুইপ করতে গিয়ে বল আকাশে তুলে দেয়। সে মাত্র ১৬ রান করেছে। টেকনিক্যালি ইংল্যান্ডের সেরা ব্যাটসম্যান সাধারণত ব্যস্ত খেলোয়াড়, যে ভালো স্ট্রাইক রেটে রান করে, কিন্তু নেমেই মেরে খেলার চেষ্টা করা তাকে তার স্বস্তির জায়গা থেকে বের করে নিয়ে গিয়েছিল।”

পাঁচে নেমে প্রথম বলেই রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে রিভার্স সুইপে চার মারেন রুট। এক বল পর একইরকম শটে বাউন্ডারির দেখা পান আরেকটি। পরের ওভারে তিনি বেরিয়ে এসে ছক্কায় ওড়ান আরেক স্পিনার আকসার প্যাটেলকে। তবে অশ্বিনের পরের ওভারেই আউট হয়ে যান বাজে শট খেলে। বেরিয়ে এসে স্লগ সুইপের চেষ্টায় ব্যাটের কানায় লেগে ক্যাচ যায় অফ সাইডে, শর্ট থার্ড ম্যানে সহজ ক্যাচ মুঠোয় জমান আকসার।