তোষাখানা মামলায় ইমরান খান ও স্ত্রীর ১৪ বছর করে কারাদণ্ড

এর আগে গত বছরের অগাস্টে পৃথক আরেকটি তোষাখানা মামলায় ৩ বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল ইমরানের।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 31 Jan 2024, 07:30 AM
Updated : 31 Jan 2024, 07:30 AM

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তার স্ত্রী বুশরা বিবিকে তোষাখানা মামলায় ১৪ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

রাষ্ট্রীয় গোপন নথি ফাঁসের মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড পাওয়ার একদিন পর বুধবার ইসলামাবাদের দুর্নীতিবিরোধী আদালত ইমরানকে এ সাজা দেন। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো কারাবাসের সাজা পেলেন ইমরান।

এর আগে গত বছরের ৫ অগাস্ট পৃথক আরেকটি তোষাখানা মামলায় তিন বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল তার। এই সাজার কারণে আগে থেকেই কারাগারে আছেন তিনি। 

পরপর দুই দিন আদালত কর্তৃক বড় ধরনের কারাদণ্ড ইমরান ও তার দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) জন্য বিশাল ধাক্কা।

পিটিআই জানিয়েছে, আদালতের দেওয়া রায়ে ইমরান ও তার স্ত্রীকে কোনো সরকারি পদ গ্রহণে ১০ বছরের জন্য অযোগ্যও ঘোষণা করা হয়েছে।

রায় ঘোষণার কিছুক্ষণের মধ্যেই বুশার বিবিকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Also Read: গোপন নথি ফাঁস মামলায় ইমরান খানের ১০ বছরের কারাদণ্ড

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, ডিসেম্বরে ইমরান ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতিবিরোধী আদালতের কাছে নতুন আরেকটি অভিযোগ দায়ের করে পাকিস্তানের দুর্নীতিবিরোধী ব্যুরো (এনএবি) । এতে বলা হয়, তারা সৌদি যুবরাজের কাছ থেকে পাওয়া একটি গহনার সেট কম দাম দেখিয়ে তার বিনিময়ে সেটি নিজেদের কাছে রেখে দিয়েছিলেন।

রায়ে আদালত ইমরান ও বুশার বিবিকে ৭৮ কোটি ৭০ লাখ রুপি জরিমানাও করেছে। পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেট তারকা থেকে রাজনীতিকে পরিণত হওয়া ইমরানকে রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত করা হয়েছিল, কিন্তু তার স্ত্রী উপস্থিত ছিলেন না।

৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। তার মাত্র আট দিন আগে এ রায় দেওয়া হল। এই নির্বাচনে ইমরানের দল পিটিআই রাষ্ট্রীয় দমনপীড়নের মধ্যে কোনো প্রতীক ছাড়াই অংশ নিচ্ছে।

এক বিবৃতিতে ইমরান খানের মিডিয়া টিম বলেছে, “আমাদের বিচার ব্যবস্থার ইতিহাসে আরেকটি দুঃখজনক দিন। বিচার ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। কোনো পাল্টাপাল্টি জিজ্ঞাসাবাদের অনুমোদন দেওয়া হয়নি, কোনো চূড়ান্ত যুক্তিতর্কের মাধ্যমেও মিমাংসা করা হয়নি; পূর্ব নির্ধারিত নাটকের মতো সিদ্ধান্ত এসেছে।”

রয়টার্স জানিয়েছে, সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তার স্ত্রী ‘অবৈধ কোনো কিছুই করেননি’ বলে দাবি করেছে তারা। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে বলেও জানিয়েছে মিডিয়া টিম।