ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী শাতায়েহর পদত্যাগ

ফিলিস্তিনের সরকার ব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের ওপর ক্রমবর্ধমান মার্কিন চাপের মধ্যেই মোহাম্মদ শাতায়েহর পদত্যাগের খবর এল।

নিউজ ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 Feb 2024, 11:06 AM
Updated : 26 Feb 2024, 11:06 AM

গাজায় হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের যুদ্ধের মধ্যে পদত্যাগ করলেন ফিলিস্তিন সরকারের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শাতায়েহ।

সোমবার প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে তিনি বলেছেন, যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে ফিলিস্তিনের রাজনৈতিক কাঠামো নিয়ে অধিকতর মতৈক্য প্রতিষ্ঠার সুযোগ করে দিতে তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিচ্ছেন।

রয়টার্স লিখেছে, ফিলিস্তিনের সরকার ব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের ওপর ক্রমবর্ধমান মার্কিন চাপের মধ্যেই মোহাম্মদ শাতায়েহর পদত্যাগের খবর এল।

প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস এখন মোহাম্মদ শাতায়েহর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করলেও নতুন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব পালনের অনুরোধ করতে পারেন।

২০১৯ সালে ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার আগে মোহাম্মদ শাতায়েহ ছিলেন অর্থনীতির অধ্যাপক। মন্ত্রিসভার উদ্দেশে লেখা এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, গত পাঁচ মাসের যুদ্ধে গাজা যে বাস্তবতার মুখোমুখি হয়েছে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করাই এখন প্রধান কাজ।

“আর সেজন্য সরকার ও রাজনীতির কাঠামোগত পরিবর্তন দরকার, যাতে গাজার বর্তমান পরিস্থিতি আমলে নিয়ে পুনর্গঠনের পদক্ষেপ নেওয়া যায়। সেজন্য জাতীয় ঐক্য এবং সংলাপ দরকার, আর দরকার ফিলিস্তিনিদের সবার মধ্যে ঐকমত্য। আর এসব করতে পুরো ফিলিস্তিন ভূখণ্ডের ওপর ‘প্যালেস্টাইনিয়ান অথরিটির’ আরো ক্ষমতা প্রয়োজন।”

৩০ বছর আগে অসলো শান্তি চুক্তির আওতায় ফিলিস্তিনের সরকার কাঠামো তৈরি হয়েছিল, যার অধীনে ছিল পশ্চিম তীর, গাজা এবং পূর্ব জেরুজালেম।

এই তিন অঞ্চল একসময় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী রাজনৈতিক দল ফাতাহ এবং অন্যান্য গোষ্ঠীগুলোর জোট ‘প্যালেস্টাইনিয়ান অথরিটির’ অধীনে ছিল, কিন্তু ২০০৭ সালে গাজার নিয়ন্ত্রণ স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের হাতে চলে যায়।

‘প্যালেস্টাইন অথরিটির’ কর্তৃত্বে থাকা ফাতাহ এবং হামাস এখন একটি ঐক্য সরকার গঠন করার বিষয়ে সমঝোতায় পৌঁছাতে চাইছে। বুধবার মস্কোতে দুই পক্ষের বৈঠকে বসার কথা রয়েছে।

হামাসের জ্যেষ্ঠ নেতা সামি আবু জোহরি রয়টার্সকে বলেন, দুইপক্ষের মধ্যে সমঝোতা হলে আগামী দিনে ফিলিস্তিনের শাসন ব্যবস্থা কীভাবে পরিচালিত হবে, সে বিষয়গুলোও নির্ধারণ করতে হবে। যদি জাতীয় ঐক্যের জন্য হয়, কেবল তখনই প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শাতায়েহর পদত্যাগ কোনো অর্থ বহন করবেন না।

ইসরায়েল বলে আসছে, নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে তারা হামাসকে ধ্বংস করতে বদ্ধপরিকর। যুদ্ধের পর প্যালেস্টাইনিয়ান অথরিটি গাজা শাসন করতে চাইলে সেটাও তারা মেনে নেবে না।

হামাস গতবছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামলা চালিয়ে ১২০০ জনকে হত্যা করলে গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর এই অভিযান শুরু হয়। সেই অভিযানে প্রায় ৩০ হাজার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে, উদ্বাস্তুতে পরিণত হয়েছে ওই ভূখণ্ডের অধিকাংশ বাসিন্দা।