নিজের জনগণকেই ঘৃণা করেন আইরিশ প্রধানমন্ত্রী: ইলন মাস্ক

দীর্ঘদিন ধরেই নিজেকে ‘বাকস্বাধীনতার ধারক’ হিসেবে দাবি করে আসছেন মাস্ক। তবে তার বেশ কিছু সিদ্ধান্ত সমালোচকদের প্রশ্নের মুখেও পড়েছে।

প্রযুক্তি ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 26 Nov 2023, 09:36 AM
Updated : 26 Nov 2023, 09:36 AM

আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাডকার ‘আইরিশ জনগণকে ঘৃণা করেন’ --এমনই দাবি সামাজিক মাধ্যম এক্স-এর মালিক ইলন মাস্কের।

মাস্কের এ বক্তব্যের আগে ঘৃণামূলক বক্তব্য ঠেকানোর উদ্দেশ্যে আয়ারল্যান্ডের আইন ‘আধুনিকায়নের’ ঘোষণা দেওয়া হয়।

সামাজিক মাধ্যম এক্স-এ ‘স্যার ডোজ অফ দ্য কয়েন’ নামের এক অ্যাকাউন্টে করা পোস্টের জবাব দিতে গিয়ে মাস্ক এ কথা বলেন। আইরিশ জনগণের আইনি পদক্ষেপ বিষয়ে এক সংবাদের লিংক পোস্ট ছিল এতে, যেখানে অভিযোগ করা হয় ‘জনগণের স্বাধীনতা কেড়ে নিতে চায় আইরিশ সরকার ’।

‘শিবা ইনু (কার্টুন)’-এর প্রোফাইল পিকচারওয়ালা ওই মিম অ্যাকাউন্টে দেওয়া পোস্টের জবাবে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি মাস্ক বলেন, “দুঃখজনক বিষয় হল, আইরিশ প্রধানমন্ত্রী নিজেই আয়ারল্যান্ডের জনগণকে ঘৃণা করেন।”

দীর্ঘদিন ধরেই নিজেকে ‘বাকস্বাধীনতার ধারক’ হিসেবে দাবি করে আসছেন মাস্ক। তবে তার বেশ কিছু সিদ্ধান্ত সমালোচকদের প্রশ্নের মুখেও পড়েছে।

এ কথোপকথনের সূত্রপাত ঘটে আয়ারল্যান্ডের রাজধানী ডাবলিনের এক স্কুলের কাছে তিন শিশু ও এক প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাতের পর দেশটিতে বাড়তে থাকা অস্থিরতার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর। আর এ ঘটনাকে দেশটির অভিবাসন নীতিমালার বিরোধীরা ব্যবহার করে বলেন- দেশটিতে কাদেরকে থাকার অনুমতি দেওয়া হবে তার নিয়মকানুন কঠোর হওয়া দরকার।

সিএনএন বলছে, ছুরিকাঘাতে আহত এক পাঁচ বছর বয়সী শিশু ও এক প্রাপ্তবয়স্ক নারী শিক্ষিকার শারীরিক অবস্থা ‘খুবই গুরুতর’।

বৃহস্পতিবারের ছুরিকাঘাতের ঘটনার পর আয়ারল্যান্ডের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানিয়েছে, ডাবলিনে রাস্তায় সহিংস আন্দোলনে নেমে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে উগ্র ডানপন্থী বিক্ষোভকারীরা।

“আমরা বেশ কয়েক দশক এমন চিত্র দেখিনি। তবে, এটা পরিষ্কার যে লোকজন সামাজিক মাধ্যম থেকে এ উস্কানি পেয়েছেন।” --শুক্রবারের ব্রিফিংয়ে বলেন আয়ারল্যান্ডের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ‘গারডা’র কমিশনার ড্রিউ হ্যারিস।

সিএনএন-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, হ্যারিস দাঙ্গাবাজদের ব্যাখ্যা করেছেন ‘অতি ডানপন্থী মতাদর্শে পরিচালিত পাগলাটে গুণ্ডা বাহিনী’ হিসেবে।

“অপরাধীরা আয়ারল্যান্ডকে ভালোবাসলেও তারা আইরিশ জনগণকে রক্ষা করতে বা দেশপ্রেমের অনুভূতি থেকে এমন কাজ করেননি। আর তারা নিজেরাও জানেন না যে তারা কী করেছেন।” --সংবাদ সম্মেলনে বলেন ভারাডকার।

“তাদের মধ্যে অনেক বেশি ঘৃণা থাকায় তারা এ কাজ করেছেন। আর তারা সহিংসতা, বিশৃঙ্খলা ও অন্যদের ক্ষতি করতেই বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন।”

আয়ারল্যান্ডের পুলিশ বলেছে, এ বিক্ষোভের পর ৩৪ ব্যক্তি গ্রেপ্তার হয়েছেন।

ব্রিটিশ দৈনিক ইন্ডিপেন্ডেন্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মাস্কের বক্তব্য এমন এক সময় এল, যখন সামাজিক মাধ্যম এক্স-এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ইহুদি বিরোধী পোস্টের পাশে শীর্ষ বিজ্ঞাপনদাতাদের বিজ্ঞাপন দেখানোর অভিযোগ এসেছে।

তবে, বামপন্থী অলাভজনক সংস্থা ‘মিডিয়াম্যাটার্স’-এর বিরুদ্ধে করা মামলায় এ অভিযোগ নাকচ করার পাশপাশি তাদের প্রতিবেদনের আংশিক সত্যতা স্বীকার করেছেন মাস্ক।