‘মনে হচ্ছে, বার্সায় যেন আমি কয়েক মাস ধরে আছি’

বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার সপ্তাহখানেকের মধ্যেই নতুন পরিবেশে স্বচ্ছন্দ হয়ে উঠেছেন পোলিশ তারকা।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 25 July 2022, 10:09 AM
Updated : 25 July 2022, 10:09 AM

দীর্ঘদিন এক ক্লাবে খেলার পর নতুন ঠিকানায়, বিশেষ করে অন্য দেশের লিগে মানিয়ে নেওয়া অনেকের জন্যই কঠিন হয়ে পড়ে। তবে রবের্ত লেভানদোভস্কির ক্ষেত্রে বিষয়টা আলাদা বলেই মনে হচ্ছে। বার্সেলোনা শিবিরে যোগ দেওয়ার সপ্তাহখানেকের মধ্যেই পোলিশ তারকা দারুণ আত্মবিশ্বাসী এবং নতুন পরিবেশে স্বচ্ছন্দ হয়ে উঠেছেন।

বার্সেলোনার সঙ্গে তার চুক্তির আনুষ্ঠানিক খবর এসেছে মাত্র দিন চারেক হলো। এর মধ্যেই কিনা লেভানদোভস্কির মনে হতে শুরু করেছে, এখানে অনেক দিন আছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র সফরে বাংলাদেশ সময় গত রোববার সকালে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে বার্সেলোনার হয়ে প্রথম মাঠে নামেন লেভানদোভস্কি। রাফিনিয়ার একমাত্র গোলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে ১-০ গোল জেতে শাভি এরনান্দেসের দল।

ম্যাচের দিন পরে বার্সা টিভি ও টিভি৩-কে আত্মবিশ্বাসী লেভানদোভস্কি বলেন, নতুন ক্লাবে খুব ভালো অনুভব করছেন তিনি।

“আমাদের চোখ এখন পরের ম্যাচের, পরবর্তী অনুশীলন সেশনে। কারণ আমাদের মনে হচ্ছে, দারুণ কিছু আসছে। এখানে আসতে পেরে, এই দলের অংশ হতে পেরে আমি খুব খুশি। আমার মনেই হচ্ছে না যে এখানে মাত্র কয়েক দিন এসেছি, অনুভূতি হচ্ছে যেন অনেক মাস ধরে আছি। সতীর্থ ও স্টাফরা অনেক সাহায্য করছে।”

“আমি ধাপে ধাপে এগোতে চাই। এই দলে থাকতে পেরে আমার খুব ভালো লাগছে, কারণ আমি এখানে আসায় আমার সতীর্থরা খুশি হয়েছে। এখানে আমার মানিয়ে নেওয়া সহজ হবে, কারণ বার্সেলোনা সবসময় অনেক গোল করার লক্ষ্যে আক্রমণাত্মক খেলে।”

গত দুইবারের ফিফা বর্ষসেরা লেভানদোভস্কি কয়েক মৌসুম ধরে হয়ে উঠেছেন যেন গোল মেশিন। বায়ার্নের জার্সিতে মাঠে নামলেই তার গোল করাটা ছিল নিয়মিত দৃশ্য। বার্সেলোনার জার্সিতে শুরুর দিনে গোল না পেলেও দলের জয়ে দারুণ খুশি তিনি।

“যদিও প্রীতি ম্যাচ ছিল, তারপরও ক্লাসিকো তো ক্লাসিকোই এবং এটা সবসময়ই ভিন্ন ও বিশেষ কিছু। ম্যাচে আমরা যে মানের ফুটবল খেলতে পেরেছি, তাতে আমরা খুশি।”

“আমরা সবসময় জয়ের কথা ভাবি। সামনে তাকানোর সুযোগ ও সামর্থ্য আমাদের আছে এবং আমাদের বিশ্বাস, আসছে মৌসুমটা আমাদের জন্য খুব ভালো হতে যাচ্ছে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক