চোট নয়, কেইনকে তুলে নেওয়ার কারণ ‘ক্লান্তি’

বিশ্বকাপের ঠিক আগে ক্লাবকে সমান গুরুত্ব দেওয়ায় ইংলিশ তারকার প্রশংসায় পঞ্চমুখ টটেনহ্যাম হটস্পার কোচ।

স্পোর্টস ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Nov 2022, 08:53 AM
Updated : 10 Nov 2022, 08:53 AM

নটিংহ্যাম ফরেস্টের বিপক্ষে দল পিছিয়ে থাকার পরও দ্বিতীয়ার্ধে হ্যারি কেইনকে তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্তে জাগে শঙ্কা। বিশ্বকাপের আগে চোটের মিছিলে না আবার যোগ দিলেন ইংল্যান্ড তারকাও! তবে তার ক্লাব টটেনহ্যাম হটস্পার কোচ আন্তোনিও কন্তে আশ্বস্ত করলেন, স্রেফ বিশ্রাম দিতেই এই ফরোয়ার্ডকে তুলে নেন তিনি।

লিগ কাপে বুধবার রাতে নটিংহ্যামের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে প্রতিযোগিতাটি থেকে ছিটকে গেছে টটেনহ্যাম। তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচটিতে শুরুর একাদশে ছিলেন কেইন। কিন্তু দল দুই গোলে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় ৫৯তম মিনিটে দলের সেরা তারকা কেইনের বদলি নামান কন্তে।

কাতার বিশ্বকাপ শুরু আগামী ২০ নভেম্বর, পরদিনই 'বি' গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইরানের বিপক্ষে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড।

এমন একটা সময়ে কেইনের এভাবে মাঠ ছাড়ায় তিনি চোটে পড়লেন কি-না, তা নিয়ে তৈরি হয়েছিল সংশয়ের।

তবে নটিংহ্যাম ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে কন্তে স্পষ্ট করে বললেন, টানা খেলার ধকলে ক্লান্ত কেইনকে বিশ্রাম দেওয়ার প্রয়োজন ছিল।

“এটা খেলোয়াড়ের ক্লান্তির ব্যাপার। আসলেই সে ক্লান্ত এবং গতকাল আমাদের একটি সাধারণ অনুশীলন সেশন ছিল এবং সেখানে এক পর্যায়ে সে প্রাণশক্তি ফিরে পাওয়ার জন্য থেমে গিয়েছিল।”

“তবে সে ঠিক আছে, এটা স্রেফ ক্লান্তি। ক্লান্ত হওয়াটাও স্বাভাবিক, কারণ হ্যারি (কেইন) প্রতিটি ম্যাচ খেলেছে। দলে তার মতো খেলোয়াড় থাকলে তাকে ছাড়া মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন।”

চলতি মৌসুমে টটেনহ্যামের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২১ ম্যাচের প্রতিটিতে শুরু থেকে খেলেছেন কেইন। এছাড়া গত সেপ্টেম্বরে উয়েফা নেশন্স লিগের চলতি আসরে ইংল্যান্ডের হয়ে দুটি গ্রুপ ম্যাচেও পুরো ৯০ মিনিট মাঠে ছিলেন ২৯ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

বিশ্বকাপ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে অনেক খেলোয়াড়ের মাঝে চোট নিয়ে তৈরি হয়েছে এক রকম আতঙ্ক। কারণ, এই সময় ছোটখাটো চোট পেলেও শেষ হয়ে যেতে পারে বৈশ্বিক আসরে খেলার সম্ভাবনা। তাই ঝুঁকি এড়াতে ক্লাবের হয়ে কম খেলার পথও কেউ কেউ বেছে নিতে পারেন।

কন্তের চোখে অবশ্য এই জায়গায় একেবারেই ব্যতিক্রম কেইন। এই ইতালিয়ান কোচ বললেন, পেশাদারিত্বের দারুণ নজির দেখিয়ে ক্লাবকে এখনও সমান গুরুত্ব দিচ্ছেন তার কেইন।

“অন্য খেলোয়াড়রা হয়তো আমাকে বলতে পারে, 'আমি ক্লান্ত এবং (কোনো এক ম্যাচে) খেলতে বা দলকে সাহায্য করতে চাই না।”

“আবার কেউ স্বার্থপর হতে পারে এবং নিজের চিন্তা করতে পারে, কারণ এক সপ্তাহের মধ্যে তাদের বিশ্বকাপে খেলতে হবে। তবে তেমন কিছু না করে হ্যারি কেইন নিজেকে একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ হিসেবে তুলে ধরেছে।”

বিশ্বকাপ বিরতির আগে আগামী শনিবার শেষ ম্যাচ খেলবে টটেনহ্যাম। প্রিমিয়ার লিগে তাদের প্রতিপক্ষ লিডস ইউনাইটেড।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক