বরিশালে ‘দুই ছেলের’ পিটুনিতে হাসপাতালে বৃদ্ধ মা

দুই ছেলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশকে অনুরোধ জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান।

বরিশাল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Nov 2022, 12:16 PM
Updated : 13 Nov 2022, 12:16 PM

‘বাবাকে মারধরের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দেওয়ায়’ মাকেও বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ উঠেছে তাদের দুই ছেলের বিরুদ্ধে। এই মাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার কালবিলা গ্রামে শনিবার সন্ধ্যায় এ ঘটনাটি ঘটেছে বলে হারতা ইউপির চেয়ারম্যান অমল মল্লিক জানিয়েছেন। এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। 

সন্তানের পিটুনিতে আহত ৬০ বছর বয়সী এই মা উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি কালবিলা গ্রামের বাসিন্দা।  

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে কল্যাণ কুমার নামে একজন বলেন, ওই দম্পতির তিন ছেলে। তারা প্রায়ই তুচ্ছ অজুহাতে বৃদ্ধ বাবা-মাকে মারধর করেন। কেউ এর প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের লাঞ্ছিত করেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য তাদের এ কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করতে পারেন না। 

শনিবার সন্ধ্যায়ও তাদের মাকে বেধড়ক জুতা দিয়ে পিটিয়ে ও টেনে-হিঁচড়ে বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে যান দুই ছেলে। এতে বৃদ্ধ নারী অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। 

ইউপি চেয়ারম্যান অমল মল্লিক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এই নারীর ২৮ ও ৪০ বছর বয়সী দুই ছেলে তাদের বাবাকে মারধর করেন। এ ঘটনায় বৃদ্ধ স্বামী-স্ত্রী শনিবার ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করেন। 

ইউপি চেয়ারম্যান আরও বলেন, “অভিযোগের বিষয়ে দুই ছেলেকে নোটিশ করা হয়। কী কারণে তাদের মারধর করা হয় জানতে সেদিনই শুনানির দিন ধার্য্য করা হয়; কিন্তু শুনানির আগে সন্ধ্যায় দুই ছেলে মাকে পিটিয়েছে।” 

খবর পেয়ে সন্ধ্যার পর লোকজনের মাধ্যমে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

অমল মল্লিক বলেন, মাকে মারধর করায় দুই ছেলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। 

এ বিষয়ে জানার জন্য হারতা ইউপির ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য কৃষ্ণকান্ত বাড়ৈয়ের কাছে ফোন করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। 

উজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক হামিন সুলতানা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ছেলের মারধরে শারীরিকভাবে তেমন অসুস্থ না হলেও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন বৃদ্ধা মা। হাসপাতালে এসেছেন আশ্রয়ের জন্য। এখানে তিনি নিজেকে নিরাপদ মনে করছেন। এখান থেকে তিনি যেতে চাচ্ছেন না। ” 

উজিরপুর মডেল থানার ওসি কামরুল হাসান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি এক সাংবাদিকের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পেরেছি। হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে বিস্তারিত জানতে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক