পাবনায় আওয়ামী লীগ নেতা হত্যার নেপথ্যে জমির বিরোধ: পুলিশ

পুলিশ দাবি করেছে, একজন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের নির্দেশে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

পাবনা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Sept 2022, 12:05 PM
Updated : 13 Sept 2022, 12:05 PM

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে পাবনায় পৌর আওয়ামী লীগ নেতা সায়দার রহমান মালিথাকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছে পুলিশ।  

মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পাবনার পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্সি।

 এ সময় তিনি আরও জানান, এরই মধ্যে গত দুদিনে এ মামলায় কক্সবাজার, ঢাকা, সিরাজগঞ্জ এবং পাবনা থেকে ছয় জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র। 

 গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- হেমায়েতপুর ইউনিয়নের গফুরিয়াবাদ গ্রামের আশরাফ উদ্দিনের ছেলে আনোয়ার আহম্মেদ স্বপন (৪২), পৌর এলাকার চক ছাতিয়ানি গ্রামের কালাম মালিথার ছেলে আশিক মালিথা (২৮), আব্দুল হাকিম মালিথার ছেলে আলিফ মালিথা (২২), কাশিপুর এলাকার মো. শাহজাহানের ছেলে রিপন খান (২৭), গোপালপুর এমব্যাঙ্কমেন্ট রোডের আকবর আলীর ছেলে নুরুজ্জামান রাকিব (২৪) ও একই এলাকার রমজান আলীর ছেলে ইয়াসিন আরাফাত ইস্তি (২৬)।

 পাবনা পৌর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সাইদার রহমান মালিখাকে (৫০) শুক্রবার দুপুরে হেমায়েতপুর ইউনিয়নের বাঙ্গাবাড়িয়া মুজিব বাঁধ এলাকায় হত্যা করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওইদিন দুপুর দেড়টার দিকে সাইদার রহমান বাঙ্গাবাড়িয়া বাজারে বাঁধের একটি দোকানে বসেছিলেন। এ সময় মোটরসাইকেলে একদল হেলমেট পরিহিত লোক এসে তাকে ঘিরে ধরে। এরপর এলোপাথাড়ি গুলি করে ঘটনাস্থলে তাকে হত্যা করে চলে যায়।

 এ ঘটনায় আলাউদ্দিন মালিথাকে প্রধান আসামি করে ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে নিহতের পরিবার।

 গ্রেপ্তারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার আকবর জানান, হেমায়েতপুরে প্রায় ৬০ বিঘা জমির ভোগদখল নিয়ে চাচাতো ভাই সাইদার মালিথার সঙ্গে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন মালিথার বিরোধ ছিলো। গত নির্বাচনে আলাউদ্দিন মালিথা পরাজিত হন।

তখন আলাউদ্দিনের দখলে থাকা জমির দখল নেন সাইদার ও তার স্বজনরা। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার মারামারির ঘটনাও ঘটে। সর্বশেষ গত ৮ সেপ্টেম্বর জমি নিয়ে বিরোধে আলাউদ্দিন মালিথার ভাই সঞ্জু মালিথাকে মারপিট করে সাইদার মালিথার লোকজন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আলাউদ্দিন মালিথা নিজেদের লোকেদের সঙ্গে বৈঠক করে ভাতিজা স্বপনকে সাইদার মালিথাকে হত্যার দায়িত্ব দেন বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন পুলিশ সুপার।

 পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার স্বপনের বিরুদ্ধে হত্যা, হত্যাচেষ্টাসহ আটটি, আশিক মালিথার বিরুদ্ধে হত্যা, চুরি, মাদকসহ সাতটি এবং নুরুজ্জামান রাকিবের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা, চুরিসহ পাঁচটি মামলা রয়েছে।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক