কুষ্টিয়ায় বাউলদের ওপর হামলার বিচার দাবিতে মানববন্ধন-সমাবেশ

হামলার ঘটনায় স্থানীয় মসজিদ কমিটির সভাপতিসহ ১৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

কুষ্টিয়া প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 24 Nov 2022, 12:38 PM
Updated : 24 Nov 2022, 12:38 PM

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সাধু-বাউলদের ওপর হামলা, মারধর এবং উচ্ছেদ তৎপরতায় জড়িতদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের এনএনএস রোডস্থ পাবলিক লাইব্রেরির সামনে কেন্দ্র ঘোষিত এ কর্মসূচি পালিত হয়।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া শাখা এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির জেলা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম।

সমাবেশে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যানারে নানা শ্রেণি-পেশার প্রতিনিধিত্বশীল ব্যক্তিরা সংহতি জানিয়ে অংশ নেন।

এতে বক্তব্য দেন লেখক ও গবেষক লালিম হক, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কারশেদ আলম, কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শরিফ বিশ্বাস, সদস্য সোহেলী পারভিন ঝুমুর, কবি ও লেখক আলম আরা জুঁই, মানবাধিকার কর্মী সৈয়দা হাবিবা, সাংবাদিক হাসান আলী, রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের প্রধান হাসিবুর রহমান তামিম।

সমাবেশ সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলা শাখার নেতা কনক চৌধুরী।

এ সময় বক্তরা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মবলিদান, দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের মধ্য দিয়ে অর্জিত রক্তে ভেজা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলার মাটিতে কোনো উগ্র মৌলবাদী-জঙ্গি গোষ্ঠীর স্থান নেই। ৭১ এর পরাজিত অপশক্তি রাষ্ট্র ও সমাজের নানা জায়গায় লেবাসের আড়ালে ঘাপটি মেরে বসে আছে। সুযোগ পেলেই বিষবাষ্পের ফণা তুলে ছোবল মেরে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দেওয়ার চেষ্টা করছে। এরা কৌশলে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা নিয়ে নিজেদের শিকড় গেড়ে বসেছে।

এরা মুক্তচিন্তার মানুষদের দমিয়ে দিতে বাউল-সাধুদের ওপর হামলা, ভাংচুর, মারধর করে তাদের উচ্ছেদের মতো কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

অবিলম্বে এদের চিহ্নিত করে নির্মূল করতে না পারলে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌম অস্তিত্ব চরম হুমকির মুখে পড়বে বলে বক্তারা বলেন।

গত ৫ নভেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার লাউবাড়িয়ায় এক ভক্তের বাড়িতে সমবেত হয়েছিলেন কিছু সাধু-বাউল। সেখানে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভক্তসহ তাদের রক্তাক্ত জখম করে স্থানীয় একদল লোক।

এ ঘটনায় স্থানীয় মসজিদ কমিটির সভাপতি একরাম হোসেনসহ ১৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:

Also Read: কুষ্টিয়ায় বাউলদের উপর হামলা: প্রতিবাদ, বিচার দাবি

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক