রাজবাড়ীতে শিশু অপহরণ ও মুক্তিপণের মামলায় ৩ জনের ফাঁসি

২০১৩ সালের ৬ নভেম্বর শিশুটিকে অপহরণের পর হত্যা করা হয় বলে জানান পিপি।

রাজবাড়ী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 March 2024, 06:43 AM
Updated : 29 March 2024, 06:43 AM

রাজবাড়ী সদরে ১২ বছরের এক শিশুকে অপহরণ ও মুক্তিপণের মামলায় তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

বুধবার রাজবাড়ীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক মো. সাব্বির ফয়েজ আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন বলে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি (পিপি) সাইফুল হক জানান।

রায়ে আদালত বলে, “আসামিদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০-এর ৮/৩০ ধারার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রামাণিত হওয়ায় তাদেরকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হল।”

দণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন- রাজবাড়ী সদর উপজেলার সজ্জনকান্দা এলাকার রক্তিম, রাসেল ও মিজানপুর ইউনিয়নের চরনারায়নপুর এলাকার রনি।

নিহত রিফাত সদর উপজেলার চরনারায়ণপুর গ্রামের মোক্তার আলীর ছেলে। সে রাজবাড়ী কিন্ডারগার্টেনের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

মামলার বরাতে পিপি সাইফুল জানান, ২০১৩ সালের ৬ নভেম্বর রিফাতকে সাইকেলের প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ করা হয়। পরে তার বাবার কাছে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন অপহরণকারীরা। মুক্তিপণ না পেয়ে রিফাতকে হত্যা করা হয়।

পরে ৯ নভেম্বর সজ্জনকান্দা টিঅ্যান্ডটি পাড়ার ভৈরব শীলের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে রিফাতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে রাজবাড়ী সদর থানায় হত্যা এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও মুক্তিপণের আলাদা দুটি মামলা করেন।

২০১৬ সালের ১৮ মে হত্যা মামলায় রক্তিম ও রাসেলকে মৃত্যুদণ্ড এবং রনিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয় আদালত।

এদিকে ঘটনার প্রায় এক দশক পর অপহরণ ও মুক্তিপণের মামলায় ওই তিনজনকে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয় বলে জানান পিপি সাইফুল।

আইনজীবী সাইফুল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হত্যা মামলার রায়ের পর আসামিরা উচ্চ আদালতে আপিল করেছেন। মামলাটি বিচারাধীন।

এদিকে অপহরণ ও মুক্তিপণের মামলায় তিনজনের ফাঁসির রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের এ আইনজীবী।

[প্রতিবেদনটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক]