তিন দশকের জলাবদ্ধতা দূর হবে, চাষ হবে ২০০ একরে

ভারতের ইছামতি নদীর উজানের পানি ও স্থানীয় শতাধিক বিলের পানি যশোরের ঠেংগামারি ও গোমর বিলে জমা হত বলে জানান কৃষকরা।

বেনাপোল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 13 Feb 2024, 01:56 PM
Updated : 13 Feb 2024, 01:56 PM

সেচ প্রকল্পের মাধ্যমে যশোরের শার্শা উপজেলার ঠেংগামারি ও গোমর বিলের ২০০ একর জমির জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ শুরু হয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্যের অর্থায়নে প্রায় ৩০ বছর পর এ উদ্যোগ নেওয়ায় খুশি চাষিরা।

মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় কৃষকদের উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করতে বিলে নেমে ধানের চারা রোপণ করেন সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন।

কৃষকরা জানান, ভারতের ইছামতি নদীর উজানের পানি ও উপজেলার শতাধিক বিলের পানি ঠেংগামারি ও গোমর বিলে জমা হয়। এতে ২০০ একর জমিতে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ৩০ বছর ধরে এ ভোগান্তি পোহাচ্ছিলেন তারা।

কৃষক আজিজুল ইসলাম বলেন, বর্ষার সময় উত্তর শার্শার শতাধিক বিলের পানি ঠেংগামারি ও গোমর বিলে গিয়ে পড়ে। এ ছাড়া রুদ্রপুরে একটি সংযোগ খালের মাধ্যমে বিলের পানি ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ইছামতি নদীতে গিয়ে পড়ত।

এই সংযোগ খালে একটি স্লুইস গেটের মাধ্যমে পানি আসা-যাওয়া নিয়ন্ত্রিত হত; কিন্তু সেটি অকেজো হয়ে যাওয়ায় প্রতিবছর অন্তত ২০০ একর জমিতে স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় বলে জানান তিনি।

মঙ্গলবার সকাল থেকে উপজেলার কায়বা ইউনিয়নের ঠেংগামারি ও গোমর বিলে সেচ প্রকল্পের মাধ্যমে পানি নিষ্কাশনের কাজ শুরু হয়। পরে বিলের এক অংশে ধানের চারা রোপণ উদ্বোধন করেন যশোর-১ আসনের সংসদ সদস্য আফিল উদ্দিন।

দুপুরে তিনি রুদ্রপুর বিআরডিবি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে কায়বা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত বোরো ধান রোপণ কর্মসূচি ও কৃষক সমাবেশে বক্তব্য দেন।

তিনি বলেন, “দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে কায়বা ইউনিয়নে নির্বাচনি পথসভায় আসলে হাজার হাজার কৃষক এই বিলের পানি নিষ্কাশন করে বোরো ধান চাষের উপযোগী করে দেওয়ার দাবি করেছিলেন। সেদিন তাদের কথা দিয়েছিলাম।

“নির্বাচনে বিজয়ের আমেজ শেষ না হতেই আমি তাদের দেওয়া কথা রাখতে পেরে শুকরিয়া আদায় করছি।”

কায়বা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকুর সভাপতিত্বে এতে শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, বিএডিসি যশোরের প্রকৌশলী মিলন হোসাইন, শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন ও ইউপি চেয়ারম্যান কবির উদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।