চুয়াডাঙ্গায় সাত দিন পর গরু ব্যবসায়ীর মরদেহ ফেরত দিল বিএসএফ

ওসি জা বলেন, প্রথমে মিজানুরের স্ত্রী নাসিমা খাতুন মরদেহ শনাক্ত করেন। পরে বিএসএফ ও কৃষ্ণনগর থানা পুলিশ মরদেহ হস্তান্তর করেন।

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Feb 2024, 03:23 AM
Updated : 10 Feb 2024, 03:23 AM

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার বেনীপুর সীমান্তে গুলিতে নিহত গরু ব্যবসায়ীর মরদেহ সাত দিন পর ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ।

বুধবার বিকালে বেনীপুর সীমান্ত এবং ভারতের নোনাগঞ্জ সীমান্তের শূন্য রেখায় পতাকা বৈঠকের পর বিজিবির কাছে বিএসএফ মরদেহ হস্তান্তর করে বলে জীবননগর থানার ওসি এস এম জাবীদ হাসান জানান।

নিহত মিজানুর রহমান (৫০) ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার শেখপাড়া গ্রামের নবীছদ্দিনের ছেলে। তিনি জীবননগরের সীমান্ত ইউনিয়নের বেনীপুর গ্রামের আয়ুব আলীর জামাতা।

ওসি জাবীদ হাসান বলেন, প্রথমে মিজানুরের স্ত্রী নাসিমা খাতুন মরদেহ শনাক্ত করেন। পরে বিএসএফ ও কৃষ্ণনগর থানা পুলিশ মরদেহ হস্তান্তর করেন। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মরদেহ গ্রহণের সময় বাংলাদেশের পক্ষে ৫৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম, বেনীপুর বিওপি কমান্ডার আতিয়ার রহমান, জীবননগর থানার এসআই এস এম রায়হান, সৈকত পাড়ে, সীমান্ত ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ইশাবুল ইসলাম মিল্টন ও জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মিল্টন বলেন, গত ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে মিজানুর ও তার কয়েকজন সহযোগী অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করেন। ফেরার সময় বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন। এতে ঘটনাস্থলেই মিজানুর মারা যান। তার সহযোগীরা পালিয়ে যান।

মিজানুরের মরদেহ অ্যাম্বুলেন্সে করে তার নিজ বাড়ি শৈলকুপার শেখপাড়া গ্রামে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

[প্রতিবেদনটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক]