নারায়ণগঞ্জে ঘরে দম্পতির মরদেহ, পাশে ‘সুইসাইড নোট’

১ আগস্ট বাড়ির পঞ্চম তলার একটি কক্ষ ভাড়া নেন ওই দম্পতি।

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 10 Sept 2022, 04:08 PM
Updated : 10 Sept 2022, 04:08 PM

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ঘর থেকে এক দম্পতির অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার সন্ধ্যায় ঘরের স্টিলের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে মরদেহ দুটি দেখতে পান বলে জানান সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান।

নিহতরা হলেন- নীলফামারী জেলার আবু তালেবের ছেলে রবিউল ইসলাম (৩০) এবং তার স্ত্রী অনীশ দাশের মেয়ে লাকি দাশ ওরফে আয়েশা সিদ্দিকা (৪০)।

এই দম্পতি পাইনাদী সিআইখোলা হাজীনগর এলাকার শাহাদাত হোসেনের পাঁচতলা ভবনের পঞ্চম তলার একটি কক্ষে ভাড়া থাকতেন বলে জানায় পুলিশ।

পুলিশ ও ভবনের অন্যান্য বাসিন্দারা জানান, দুপুর থেকে পঁচা দুর্গন্ধ পাচ্ছিলেন প্রতিবেশীরা। বিকেলে দুর্গন্ধ আরও তীব্র হলে বাড়িওয়ালা পুলিশে খবর দেন।

ভবনটির মালিক শাহাদাত হোসেন জানান, ১ আগস্ট তার বাড়ির পঞ্চম তলার একটি কক্ষ ভাড়া নেন ওই দম্পতি। রবিউল রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন।

সবশেষ বুধবার রবিউলকে হাতে ওষুধ নিয়ে বাসায় ঢুকতে দেখেছেন বলে জানান প্রতিবেশী ভাড়াটিয়া আবুল হোসেন। এরপর রবিউল বা তার স্ত্রীকে আর ঘরের বাইরে দেখেননি।

থানা পুলিশের পাশাপাশি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি দল।

পিবিআইয়ের এসআই শাকিল হোসেন বলেন, “ঘরের মেঝেতে একটি তোশক বিছানো ছিল। নিহত নারীর মরদেহ তোশকের উপরে এবং পুরুষের মরদেহ অর্ধেক তোষকে এবং অর্ধেক মেঝেতে ছিল। দুজনেরই মরদেহ প্রায় অর্ধগলিত অবস্থায় পাওয়া গেছে। মেঝেতে শুকিয়ে যাওয়া রক্তও দেখা গেছে। অন্তত তিন-চারদিন আগে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।”

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, ঘরের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

ঘর থেকে একটি ‘সুইসাইড নোট’ উদ্ধারের তথ্য জানিয়ে ওসি আরও বলেন, “নিহত নারীর আগে নাম ছিল লাকি দাস। তিনি নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে হিন্দু থেকে ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়েছেন। মুসলিম হওয়ার পর তার নাম রেখেছেন আয়েশা সিদ্দিকা। এই নারীর আগেও একটি বিয়ে হয়েছিল। তার ওই সংসারে একটি সন্তানও রয়েছে। সুইসাইড নোটে এই সন্তানকে নিয়ে দাম্পত্য কলহের বিষয়টি উল্লেখ করেছেন তিনি।”

প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যার ধারণা করলেও ঘটনার সঙ্গে অন্য কোনো ব্যাপার রয়েছে কি-না জানতে তদন্ত হচ্ছে বলেও জানান মশিউর রহমান।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক