গাজীপুরে প্রবাসীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ, গ্রেপ্তার ২

তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই প্রবাসী ছিলেন।

গাজীপুর প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 18 Feb 2024, 03:02 AM
Updated : 18 Feb 2024, 03:02 AM

গাজীপুরের কালীগঞ্জে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধের জেরে প্রবাসীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।এ ঘটনায় করা মামলায় পুলিশ দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।

গত মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে ঢাকার উত্তরার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই প্রবাসীর মৃত্যু হয় বলে কালীগঞ্জ থানার ওসি ফয়েজুর রহমান জানান।

নিহত মোক্তার হোসেন ফকির (৪৩) উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের গোয়ালীয়া বাড়ির হাসান আলী ফকিরের ছেলে।

তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই প্রবাসী ছিলেন। সম্প্রতি ছুটিতে দেশে আসা মোক্তারের ৭ অক্টোবর দুবাই ফিরে যাওয়ার কথা ছিল।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি ফয়েজুর রহমান জানান, গত সোমবার সকালে বক্তারপুর ইউনিয়নের গোয়ালীয়াবাড়ি এলাকায় জমির সীমানা নির্ধারণ করার সময় প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহ*ত হন মোক্তার হোসেন।

এ ঘটনায় তার ভাই সুরুজ মিয়া ওই দিনই চাচাতো ভাই আলম ফকির (৬০), তার দুই ছেলে শারফুদ্দিন ফকির (৩৮) ও রিপন ফকির (৩০) এবং তাদের স্ত্রীর চম্পা বেগম (৩০) ও রুমি আক্তারের (২৭) বিরুদ্ধে কালীগঞ্জ থানার লিখিত অভিযোগ দেন।

শারফুদ্দিন ও রিপনকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠান হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

মঙ্গলবার গভীর রাতে হাসপাতালে মারা যান মুক্তার হোসেন।

সুরুজ মিয়া জানান, গত সোমবার সকালে তার ভাই মোক্তার হোসেনকে তার চাচাতো বোনের কাছে থেকে কেনা জমির সীমানা নির্ধারণ করে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য পারিবারিকভাবে সবাই একত্রিত হন।

তখন জমি মেপে সীমানা নির্ধারণী পিলার স্থাপন করা নিয়ে মোক্তার হোসেনের চাচাতো ভাই ও ভাতিজাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মারামারি বাঁধে। তখন তারা মোক্তার হোসেনের মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করেন।

এ সময় এগিয়ে গেলে প্রবাসীর মেয়ে স্থানীয় মাদ্রাসার ফাজিল দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী (১৭), স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন (৩৫), ভাই সারোয়ার ফকির (৫০) এবং আক্তার ফকিরকে (৩৬) পিটিয়ে আহত করেন প্রতিপক্ষের লোকজন।

তখন স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায় বলে মামলার এজাহারে বলা হয়। 

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় মোক্তার হোসেন ফকিরসহ অন্যদের উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

তবে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকের পরামর্শে স্বজনরা মোক্তারকে উত্তরার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। এক দিন পর সেখানে তিনি মারা যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক সাইফুল ইসলাম বলেন, দুজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান ও মামলার তদন্ত চলছে।

[প্রতিবেদনটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ০৪ অক্টোবর ২০২৩ তারিখে: ফেইসবুক লিংক]