বন্ধুর মায়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে মাসুদ ফিরলেন লাশ হয়ে

শরীয়তপুরে অ্যাম্বুলেন্স দুর্ঘটনায় অন্য পাঁচজনের সঙ্গে প্রাণ গেল তারও।  

বরিশাল প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 17 Jan 2023, 01:42 PM
Updated : 17 Jan 2023, 01:42 PM

পরোপকারী হিসেবে সুনাম ছিল বরিশালের সাংবাদিক মাসুদ রানার। এক বন্ধুর ক্যান্সার আক্রান্ত মাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পথে শরীয়তপুরে অ্যাম্বুলেন্স দুর্ঘটনায় অন্য পাঁচজনের সঙ্গে প্রাণ গেল তারও।   

প্রিয় মানুষটির মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না তার বন্ধুরা; তাকে শেষবারের মতো দেখতে ছুটে গেছেন  আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের লখারমাটিয়া গ্রামে। সবার চোখ অশ্রুসজল। আর স্বামীকে হারিয়ে বাড়িতে পাগলপ্রায় স্ত্রী মালা রাখাইন। 

মঙ্গলবার ৪টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরায় পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানার কাছাকাছি এলাকায় পদ্মা সেতুতে ওঠার আগে একটি ট্রাকের পেছনে ধাক্কা খেয়ে অ্যাম্বুলেন্সের ছয় আরোহীর প্রাণ যায়। 

তারা হলেন- পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার আমেরিকা প্রবাসী লতিফ মল্লিকের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৫৫), তার মেয়ে লুৎফুন্নাহার লিমা (২৮), দৈনিক নবচেতনা পত্রিকার বরিশাল ব্যুরো প্রধান সাংবাদিক মাসুদ রানা (৩০), পটুয়াখালীর দশমিনার আদমপুর এলাকার আব্দুল রাজ্জাক মল্লিকের ছেলে ফজলে রাব্বি (২৮), মাদারীপুরের মস্তফাপুর এলাকার অ্যাম্বুলেন্স চালক জিলানি (২৮) এবং খুলনার দীঘলিয়ার চন্দনিমহল ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা অ্যাম্বুলেন্স চালকের সহকারী রবিউল ইসলাম (২৬)। 

স্বজনরা জানিয়েছেন, আগৈলঝাড়া উপজেলার সোবাহান মৃধার ছেলে মাসুদ রানা নগরীর ব্রাউন কম্পাউন্ড এলাকায় স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া বাসায় বাস করতেন। বরিশাল নগরী থেকে প্রকাশিত বিডিবুলেটিন নামে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের প্রধান বার্তা সম্পাদক ছিলেন তিনি।

পাঁচ বছর আগে প্রেম করে বিয়ে করেন পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মালা রাখাইনকে। এই দম্পতি নিঃসন্তান ছিলেন। বরিশাল নগরীর আমতলা মোড় এলাকায় ‘কাচ্চিখানা’ নামে একটি জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ আছে তাদের। 

রেস্তোরাঁটি স্ত্রীকে ভালবেসে উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন বলে জানালেন মাসুদ রানার সহকর্মী সৈয়দ মেহেদী হাসান। 

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মালা রাখাইন স্বাবলম্বী হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন। তাই তাকে ‘কাচ্ছিখানা’ করে দিয়েছিলেন মাসুদ রানা। 

মাসুদ রানা সাংবাদিকতার পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন বলে জানান এফএফএল বিডি ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মামুনুর রশিদ নোমানী। 

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, মাসুদ রানা একজন সজ্জন ব্যক্তি ছিলেন। বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তার সরব উপস্থিতি ছিলো। 

নোমানী বলেন, তাদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, শিক্ষার্থীদের নৈতিক ও প্রযুক্তি শিক্ষাদান, মাদকবিরোধী প্রচার এবং স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচিতে সব সময় সক্রিয় থাকতেন মাসুদ রানা। 

অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডিবুলেটিনের সম্পাদক ও প্রকাশক কাজী আফরোজা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, একজন আস্থাশীল সংবাদকর্মী ছিলেন মাসুদ রানা। পাঁচ বছর ধরে বিডিবুলেটিনের প্রধান বার্তার দায়িত্বে ছিলেন। খুব ভালো মানুষ ছিলেন তিনি।

মাসুদ রানার দীর্ঘদিনের সহকর্মী তন্ময় তপু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মাসুদের সঙ্গে আর দেখা হবে না, হাসি-ঠাট্টা-ফূর্তি হবে না। এটা মানতেই পারছি না। কয়েকদিন তার সঙ্গে দেখা হয়নি। পরিকল্পনা ছিলো আগামী শুক্রবার একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া করবো। কিন্তু সেই পরিকল্পনা থমকে দিয়েছে একটি দুর্ঘটনা।” 

বিকাল ৩টায় মাসুদ রানার মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসে পৌঁছেছে। মাগরিবের নামাজের পর জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয় তাকে। 

মাসুদ রানার স্বজন বাপ্পী সাংবাদিকদের বলেন, “এলাকা থেকে বরিশালে কেউ গেলেই কিভাবে তাদের আপ্যায়ন করবেন তা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়তেন। কোনো সাহায্যের জন্য বললে কোনো কিছু না ভেবেই করতেন। নিজের জন্য যা করেনি তার থেকে বহুগুন অন্যের জন্য করেছে মাসুদ ভাই।”

নিহত জাহানারা বেগমের স্বজন ইয়াসিন মল্লিক সাংবাদিকদের বলেন, “জাহানারা বেগম আমার ভাবী। আমার ভাই লতিফ মল্লিক আমেরিকা প্রবাসী। তার মেয়ে লুৎফুন্নাহার লিমা। সেও দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। লিমার বন্ধু ছিলেন মাসুদ রানা। এ ছাড়া একই দুর্ঘটনায় আমার মামাতো ভাইয়ের ছেলে ফজলে রাব্বিও মারা গেছে।” 

তিনি জানান, জাহানারা বেগম দুইমাস ধরে অসুস্থ ছিলেন। এজন্য তারা বরিশাল নগরীর কলেজ অ্যাভিনিউ লতিফ ম্যানশনে নিজের বাসায় ছিলেন। সোমবার রাত ১১টার দিকে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বরিশাল নগরীর কেএমসি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। রাত ১১টার দিকে তারা রওনা দেন।

আরও পড়ুন:

Also Read: শরীয়তপুরে ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা, প্রাণ গেল অ্যাম্বুলেন্সের ৬ আরোহীর

Also Read: ক্যান্সারের রোগী নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সটি ঢাকা যাচ্ছিল, ৩ লাশ হস্তান্তর

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক