ভোটের রাতে নোয়াখালীতে নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ, মঙ্গলবার রায়

চার সন্তানের ওই জননীর অভিযোগ, ভোটকেন্দ্রে থাকা ব্যক্তিদের পছন্দের প্রতীকে ভোট না দেওয়ার জেরে ওই ঘটনা ঘটানো হয়।

নোয়াখালী প্রতিনিধিবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 15 Jan 2024, 06:13 PM
Updated : 15 Jan 2024, 06:13 PM

২০১৮ সালে একাদশ সংসদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণের রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে স্বামী-সন্তানদের বেঁধে রেখে নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ ও নির্যাতন মামলার রায় মঙ্গলবার ঘোষণা করার দিন রয়েছে।

নোয়াখালী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক ফাতেমা ফেরদৌস রায় ঘোষণা করবেন বলে আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের সহকারী কৌঁসুলি (এপিপি) সালেহ আহমদ সোহেল খান জানান।

২৯ নভেম্বর অধিকতর যুক্তিতর্ক শেষে রায়ের এ দিন ঘোষণা করেন বিচারক।

মামলায় বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটের দিন রাতে উপজেলার মধ্যবাগ্যা গ্রামে চল্লিশোর্ধ ওই নারীর ঘরে ঢুকে স্বামী-সন্তানকে বেঁধে রেখে তাকে দলবদ্ধ ধর্ষণ ও অমানুষিক নির্যাতন করা হয়।

চার সন্তানের ওই জননীর অভিযোগ ছিল, ভোটকেন্দ্রে থাকা ব্যক্তিদের পছন্দের প্রতীকে ভোট না দেওয়ার জেরে ওই ঘটনা ঘটানো হয়।

পরদিন ওই নারীর স্বামী বাদী হয়ে চরজব্বর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত প্রচার সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য রুহুল আমিনসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

এপিপি সালেহ আহমদ সোহেল খান বলেন, “আলোচিত এ মামলায় ২৩ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। এ ছাড়া আসামিপক্ষ চারজন সাফাই সাক্ষী উপস্থাপন করেছে।”

১৬ আসামির মধ্যে ১৫ জন কারাগারে আছেন। রায় ঘোষণার সময় তাদের আদালতে হাজির করা হবে। মো. মিন্টু ওরফে হেলাল (২৮) নামে এক আসামি ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন।

আসামিদের মধ্যে আটজন ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।