‘মোটা মোটা বাঁশের লাঠি’ নিয়ে কর্মীদের রাস্তায় নামতে বললেন গয়েশ্বর

কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, “এখন আপনারা যেমন পুলিশ দেখলে দৌড় দেন না, সামনে দাঁড়ান। এই সামনে দাঁড়ানোর কাজটা অব্যাহত রাখুন।”

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 21 Sept 2022, 02:13 PM
Updated : 21 Sept 2022, 02:13 PM

আঘাত এলে পাল্টা আঘাত করতে হবে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় নেতা-কর্মীদের মোটা বাঁশের লাঠি নিয়ে আন্দোলনে নামার পরামর্শ দিয়েছেন।

বুধবার ঢাকার মিরপুরে দলের এক সমাবেশে তিনি বলেন, “আপনারা যেভাবে জেগে উঠেছেন, এখন আপনারা যেমন পুলিশ দেখলে দৌড় দেন না, সামনে দাঁড়ান। এই সামনে দাঁড়ানোর কাজটা অব্যাহত রাখুন।

“আজকে রাস্তায় আপনাদের হাতে পতাকাসহ লাঠি ছিল ছোটো ছোটো। এরপরে মোটা মোটা বাঁশের লাঠি নিয়ে রাস্তায় নামতে হবে। প্রত্যেকের হাতে লাঠি থাকবে। কেন থাকবে? আমার আন্দোলনে-সংগ্রামে নেতা-কর্মীদের আত্মরক্ষার জন্য। আঘাত আসলে তো পাল্টা আঘাত করতে হবে।”

নেতাকর্মীদের এ পরামর্শের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ‘নিরপেক্ষভাবে’ দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান গয়েশ্বর।

এখন বিএনপির আন্দোলনের ‘রিহার্সাল চলছে’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “ওবায়দুর কাদের প্রায়ই বলেন, আমাগো আন্দোলন করার মুরদ নাই... আন্দোলন নিয়ে কত কথা কয়।

“এত কথা… আপনি কা কা করেন কেন? এটা মাত্র তো রিহার্সাল। এখনও তো ফাইনাল খেলা আমাদের নেতাকর্মীরা শুরু করে নাই।”

জ্বালানি তেল ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, ভোলায় নুরে আলম, আব্দুর রহিম, নারায়ণগঞ্জের শাওন প্রধান নিহত এবং পল্লবীসহ সারাদেশে বিএনপির কর্মসূচিতে হামলার প্রতিবাদে বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার মিরপুর জোনের উদ্যোগে এই সমাবেশ হয়।

গয়েশ্বর বলেন, “গণতান্ত্রিক বিশ্বের প্রতি আহ্বান থাকবে, জনগণের এই লড়াইয়ে তাদের পাশে থাকুন। আমরা গণতান্ত্রিক বিশ্বের সদস্য হিসেবে আপনাদের সহযোগিতা চাই গণতন্ত্রের প্রশ্নে এবং আমাদের ভোটাধিকারের ফিরিয়ে আনার প্রশ্নে।

“আমাদেরকে ক্ষমতা এনে দিতে হবে না কাউকে। জনগণ ডিসাইড করবে কাকে ক্ষমতা দেবে, কাকে দেবে না।”

মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আমিনুল হকের পরিচালনায় সমাবেশে দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, নাজিম উদ্দিন আলম, যুবদলের মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের রাজীব আহসানসহ কেন্দ্রীয় ও অঙ্গসংগঠনের নেতারাও বক্তব্য দেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক