প্রোবায়োটিকসয়ের ঘাটতি মেটানোর খাদ্যাভ্যাস

মাঝে মধ্যে পেটফোলাভাব বা গ্যাস হওয়ার মতো পেটে অস্বস্তি হতে পারে।

লাইফস্টাইল ডেস্কবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 6 Feb 2024, 11:31 AM
Updated : 6 Feb 2024, 11:31 AM

প্রোবায়োটিকস হল এক ধরনের জীবন্ত ব্যাক্টেরিয়া ও ইস্ট, যা দেহের জন্য উপকারী।

যুক্তরাষ্ট্রের চার্লসটনভিত্তিক নিবন্ধিত পুষ্টিবিদ লরেন মানাকার এ বিষয়ে বলেন, “প্রোবায়োটিককে ‘ভালো’ ও ‘বন্ধু’ ব্যাক্টেরিয়া বলা হয়, যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।”

“এগুলো খাবার ভাঙন, পুষ্টি শোষণ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে সহায়তা করে। প্রোবায়োটিক নির্দিষ্ট কিছু হজমের সমস্যা যেমন- পেট ফাঁপা ও ফোলাভাব থেকে মুক্তি দিতে পারে”- ওয়েলঅ্যান্ডগুড ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ব্যাখ্যা করেন এই পুষ্টিবিদ।

তবে কীভাবে বুঝবেন দেহে এই উপকারী ব্যাক্টেরিয়ার ঘাটতি রয়েছে? সেজন্য মানাকার তিনটি লক্ষণের দিকে নজর দেওয়ার পরামর্শ দেন।

ভালো খাদ্যাভ্যাসের অভাব

গাঁজানো খাবার যেমন- কেফির, কিমচি ও মিসো অন্ত্রে মাইক্রোবায়োমে ভালো ‘মাইক্রোবস’ যোগ করে।

কেবল যেসব খাবার ও সম্পূরক এদের বাঁচিয়ে রাখে এবং উপকারী ভূমিকা পালন করে তাদের বলা হয় প্রোবায়োটিক।

কিছু খাবার প্রোবায়োটিক হিসেবে পরিচিত যা দেহের জন্য উপকারী। সম্পূরক মাইক্রোবায়োমে প্রোবায়োটিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। 

মাঝেমধ্যে পেট ফোলাভাব ও গ্যাস

“সময়ে অসময়ে পেট ফোলাভাব দেখা দিলে  খাবার তালিকায় প্রোবায়োটিক সম্পূরক যোগ করার মাধ্যমে পেট ফোলাভাব ও গ্যাস হওয়ার উপক্রম কমানো” বলেন মানাকার।

তিনি আরও বলেন, “যদিও পেটের সমস্যা বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। এটা অন্ত্রের মাইক্রোবায়োমের ভারসাম্যহীনতার কারণেও হয়।”

প্রোবায়োটিক সম্পূরক বা সাপ্লিমেন্ট হজমের ভারসাম্য রক্ষা করে, পেট ফোলা ও গ্যাসের সমস্যা দূর করে।

হজমজনিত সমস্যা দেখা দিলে স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করা উচিত এবং জটিলতা এড়াতে নিয়ম মেনে চলা প্রয়োজন।

আর্দ্র থাকা কঠিন হয়ে পড়ে

ব্যস্ত জীবনে আর্দ্র থাকা বলা সহজ হলেও কার্যত কঠিন।

“অন্ত্রে পানির ঘাটতি দেখা দিলে পেটে অস্বস্তি হতে পারে”- বলেন মানাকার।

তার কথায়, “হজম উন্নত করতে ও পেটের সমস্যা যেমন- মাঝে মধ্যে পেট ফোলা, ফাঁপা ইত্যাদি এড়াতে আর্দ্র থাকা জরুরি।”

আরও পড়ুন

Also Read: অন্ত্র ভালো রাখতে পারে ৪ রকম খাবার

Also Read: দুশ্চিন্তা আর মানসিক চাপ কমাতে স্বাস্থ্যকর খাবার

Also Read: ‘ফার্মেন্টেড’ মানেই ‘প্রোবায়োটিক’ নয়