বন্যপ্রাণী আইন: মামলামুক্ত হল হাওয়া

মামলা প্রত্যাহারের আবেদনে বলা হয়, বন্যপ্রাণী ব্যবহার করলে যে অপরাধ হবে, তা ‘জানতেন না’ সিনেমার নির্মাতা, সেজন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন। 

গ্লিটজ প্রতিবেদকআদালত প্রতিবেদকবিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published : 29 Sept 2022, 11:48 AM
Updated : 29 Sept 2022, 11:48 AM

বন্যপ্রাণী আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে ‘হাওয়া’ সিনেমার পরিচালক মেজবাউর রহমান সুমনের বিরুদ্ধে করা মামলাটি অবশেষে প্রত্যাহার করেছে বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট।

সুমন ‘দুঃখ প্রকাশ’ করে বিষয়টি নিষ্পত্তির আবেদন করায় বাদী বন্যপ্রাণী পরিদর্শক নার্গিস সুলতানা মামলা প্রত্যাহারের আবেদন করেছিলেন।

শুনানির পর ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আবু বকর ছিদ্দিক বৃহস্পতিবার মামলা প্রত্যাহারের আদেশ দেন বলে এ আদালতের পেশকার পারভেজ আহমেদ জানান।

মামলা প্রত্যাহারের আবেদনে বলা হয়, “আসামি সিনেমায় ব্যবহৃত বন্যপ্রাণী সম্পর্কে অবগত ছিলেন না এবং বন্যপ্রাণী ব্যবহার করলে যে অপরাধ হবে, তা জানতেন না।

“আসামি নিজের ব্যবহৃত প্যাডে বন্যপ্রাণী ব্যবহার সম্পর্কে দুঃখ প্রকাশসহ নিষ্পত্তির জন্য আবেদন করেন৷ এরপর মামলার বাদী তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে এ মামলাটি প্রত্যাহার করতে ইচ্ছুক।

গত ২৯ জুলাই দেশের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে মুক্তি পায় ‘হাওয়া’। দীর্ঘদিন পর দেশে চলচ্চিত্র অঙ্গনে সিনেমাটি সাড়া ফেলে দেয়।

কিন্তু সিনেমায় শালিক পাখিকে খাঁচায় বন্দি রাখা, মেরে খাওয়া কিংবা শাপলা পাতা মাছ ধরার দৃশ্যগুলো আইন লঙ্ঘনের নজির বলে প্রাণী অধিকারকর্মীরা অভিযোগ তুললে সিনেমাটি দেখার সিদ্ধান্ত নেয় বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট।

এরপর গত ১৭ অগাস্ট ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বন্যপ্রাণী পরিদর্শক নার্গিস সুলতানা বাদী হয়ে ওই মামলা করেন। সিনেমায় শালিক পাখিকে খাঁচায় বন্দি রাখা, মেরে খাওয়ার দৃশ্যগুলোয় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২ লঙ্ঘন হয়েছে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

তবে হাওয়ার নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমন বরাবরই বলে আসছিলেন, সিনেমায় সত্যিকারের কোনো বন্যপ্রাণীকে মারা হয়নি। অভিনয়শিল্পী, নির্মাতা, কলাকুশলীরাও মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানান।তুমুল আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে ২৮ অগাস্ট পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সিনেমার পরিচালক কর্তৃক ‘আপস নিষ্পত্তি করার আবেদনের’ পরিপ্রেক্ষিতে বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট কর্তৃক দায়ের করা মামলাটি সমঝোতার ভিত্তিতে প্রত্যাহারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

মামলার বাদী নার্গিস সুলতানা ওইদিনই মামলাটি প্রত্যাহারের আবেদন করেছিলেন আদালতে। তার জবানবন্দি নিয়ে বিচারক বৃহস্পতিবার তার মঞ্জুর করে আদেশ দিলেন।

তৌফিক ইমরোজ খালিদী
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক